শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং, ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী
শনিবার, ৩০শে মে, ২০২০ ইং
পুলিশ সপ্তাহ-২০২০

পুলিশের সর্বোচ্চ পদক পেলেন শরীয়তপুরের সন্তান মেজবাহ

পুলিশের সর্বোচ্চ পদক পেলেন শরীয়তপুরের সন্তান মেজবাহ
পুলিশের সর্বোচ্চ পদক পেলেন শরীয়তপুরের সন্তান মেজবাহ

পুলিশ বাহিনীতে সর্বোচ্চ পদক ‌’বাংলাদেশ পুলিশ পদক-বিপিএম(সাহসিকতা) পেয়েছেন শরীয়তপুরের কৃতি সন্তান ইন্সপেক্টর মেজবাহ্‌ উদ্দিন আহমেদ। পুলিশ সপ্তাহ-২০২০ এর উদ্বোধনী দিনে ৫ জানুয়ারী রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে এই পদক পরিয়ে দেন। এর আগে প্রধানমন্ত্রী রাজারবাগ প্যারেড গ্রাউন্ডে পুলিশ সপ্তাহের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন।
পুলিশ কর্মকর্তা মেজবাহসহ এবার ১১৮ জন কর্মকর্তা বিপিএম-সাহসিকতা, বিপিএম-সেবা, পিপিএম-সাহসিকতা ও পিপিএম-সেবা-এই চার ক্যাটগরিতে পদক পান। তাদের মধ্যে মেজবাহসহ ১৪ জন কর্মকর্তা পুলিশের সর্বোচ্চে পদক বিপিএম-সাহসিকতা পান। বাহিনীতে অসীম বীরত্ব এবং সাহসিকতাপূর্ণ কাজের জন্য বিপিএম-সাহসিকতা পদক দেওয়া হয়ে থাকে।
শরীয়তপুরের জাজিরা সদরের বিলাশপুরে জন্ম নেওয়া মেজবাহ উদ্দিন ১৯৯৪ সালে সার্জেন্ট হিসেবে পুলিশ বাহিনীতে যোগ দেন। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ইন্সপেক্টর পদে পদোন্নতির পর দীর্ঘদিন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশে (ডিবি) দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে তিনি পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের স্পেশাল অ্যাকশন গ্রুপের আমর্স অ্যানফোর্সমেন্ট টিমে দায়িত্ব পালন করছেন। এই টিমটি দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী ও জঙ্গি সংগঠনের সদস্যদের গ্র্রেফতার ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করে থাকে।
মেজবাহ ২০১৯ সালে তার দায়িত্ব পালনকালে অসীম সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য এবার বিপিএম-সাহসিকতা পদকে ভূষিত হলেন। গেল বছর তিনি দুর্ধর্ষ শিবির ক্যাডার হাসিব ওরফে হাতকাটা হাসিবকে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল একে-২২সহ গ্রেফতার করেন। এ ছাড়া তিনি গত বছর বিভিন্ন অভিযানে দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে ৫ টি অবৈধ রিভালবার, ৩টি পিস্তল, একটি বন্দুক, দুটি শুট্যারগান ও বিভিন্ন বোরের ২২০ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেন।
এর আগের বছরগুলোতেও তিনি দায়িত্ব পালনকালে তিনি অস্ত্রধারী জঙ্গি ও সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে সাহসিকতাপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। এজন্য ২০১৫ সাল ও ২০১৭ সালে তিনি দুই দফা রাষ্ট্রপতি পদকে (পিপিএম) ভূষিত হন। শরীয়তপুরের সন্তান এই পুলিশ কর্মকর্তা কর্মক্ষেত্রে অসামান্য অবদান ও দক্ষতার জন্য ২০১২ সাল ও ২০১৮ সালে আইজিপি পদকও লাভ করেন।