বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ ইং, ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ ইং

১০ টাকার চাল বস্তাপ্রতি ৪ কেজি কম দেয়ার অভিযোগ

১০ টাকার চাল বস্তাপ্রতি ৪ কেজি কম দেয়ার অভিযোগ

শরীয়তপুর ১০ টাকা দরের চালের ত্রিশ কেজির বস্তা খুলে চার কেজি করে চাল কম দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। শরীয়তপুরের পালং ইউনিয়নের কানার বাজার পয়েন্টের সরকারী চাল বিক্রি করার ডিলার জাহাঙ্গীর মুন্সীর বিরুদ্ধে।
১৬ এপ্রিল সরেজমিনে গিয়ে ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, পালং ইউনিয়ন পরিষদের ৬ নং ওয়ার্ডের সদস্য বোরহান উদ্দিন মুন্সী তার ছোট ভাই জাহাঙ্গীর আলম মুন্সীর নামে সরকারী চাল বিক্রির ডিলার নিয়োগ এনে তা বিতরন করেন বোরহান মেম্বার নিজেই। এছাড়াও এই ডিলার সবসময়ই এই ত্রিশ কেজি চালের মধ্যে দু-চার কেজি কম দিয়ে থাকেন এবং বস্তাও রেখে দেন।
এই ডিলারের বিরুদ্ধে চাল কম দেয়ার অভিযোগ করে পালং ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের কার্ডধারী আব্দুল হাই খন্দকার বলেন, আমি অনেক কষ্ট করে ৩’শ টাকা যোগাড় করে চাল আনতে গিয়েছি। চাল বাড়িতে এনে মেপে দেখি ২৬ কেজি, বোরহান মেম্বার আমাকে চার কেজি চাল কম দিয়েছে।
এছাড়াও পালং ইউনিয়নের আরো একাধীক ব্যাক্তি বোরহান মেম্বারের বিরুদ্ধে চাল কম দেয়ার অভিযোগ করে জানান, সে সবসময় চাল কম দেয় আমাদের এবং বস্তা রেখে দেয় কিছু বললে কার্ড রেখে দেওয়ার হুমকি দেয় তিনি। আমরা গরীব মানুষ তার বিরুদ্ধে কিছু বলেতো লাভ নাই কি হবে। শেখ হাসিনার বাংলাদেশ ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ সরকারের এই প্রকল্পটি প্রায় ৫ বছর ধরে চলছে। ছোট ভাই জাহাঙ্গীর মুন্সীর নামে একবছরের বেশি সময় ধরে চাউলের ডিলার নিয়ে চালিয়ে আসছে মেম্বার বোরহান মুন্সী।
এবিষয়ে শরীয়তপুর সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা বলেন, চাল কম দেয়ার ঘটনাটি শুনে আমি কানার বাজার পয়েন্টে যাই সেখানে গিয়ে কোনো গ্রাহক না পাওয়ায় চাল কম দেয়ার সরাসরি কোনো অভিযোগ পাইনি, অভিযোগ পেলে ডিলারের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।
চাল ওজনে কম দেয়ার ঘটনায় শরীয়তপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাহবুবুর রহমান শেখ বলেন, আমি মোবাইল ফোনে বিষয়টি জেনে সাথে সাথে ঘটনাস্থলে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রককে পাঠিয়েছি এবং বৃহস্পতিবারের সকাল ১০ টার মধ্যে লিখিত প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছি।


error: Content is protected !!