শুক্রবার, ৭ই অক্টোবর, ২০২২ ইং, ২২শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
শুক্রবার, ৭ই অক্টোবর, ২০২২ ইং

শরীয়তপুর সদর উপজেলায় আট বছরের শিশুর শরীরে করোনা শনাক্ত

শরীয়তপুর সদর উপজেলায় আট বছরের শিশুর শরীরে করোনা শনাক্ত

শরীয়তপুর সদর উপজেলায় আট বছরের শিশুর শরীরে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এই প্রথম এক ছেলে শিশুর করোনা রোগী শনাক্ত হয়।
সোমবার (২৭ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১ টার দিকে জরুরী প্রেস রিলিজের মাধ্যমে তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল কর্মকর্তা (রোগ নিয়ন্ত্রণ) মো. আবদুর রশিদ।

জেলা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল কর্মকর্তা (রোগ নিয়ন্ত্রণ) মো. আবদুর রশিদ জানান, আক্রান্ত শিশু সদর উপজেলার চিতলীয়া ইউনিয়নের টুমচর এলাকার। সম্প্রতি তার পরিবারের লোকজন নারায়ণগঞ্জ থেকে ফিরেছে। গত ১৩ এপ্রিল সোমবার ওই শিশুর কাকি ও চাচাতো নানা এবং নানী করোনাভাইরাস সংক্রমণ শনাক্ত হয়। করোনা রোগীর সংস্পর্শে আশায় শিশুটি করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। শিশুটিসহ জেলায় করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্ত হয়েছে ২৩ জন।

তিনি জানান, আক্রান্ত ২৩ জনের মধ্যে দুইজনের মৃত্যু হওয়ায় বাকি ২১ জনের মধ্যে একজন কুর্মিটোলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। অন্য ২০ জনকে সংক্রমণ প্রতিরোধে নিজ বাড়িতে নিবিড় আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হচ্ছে। আজ দুপুর ১২টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলা থেকে আসা ৬৯ জনকে নতুন করে হোম কোয়ারেন্টাইনে আনা হয়েছে। ১৪ দিন পার হওয়ায় ১২৩ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইন থেকে অবমুক্ত করা হয়েছে।

সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাহাবুর রহমান শেখ বলেন, আক্রান্ত শিশুটি বাড়িতেই ছিলেন। সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়ার পর আক্রান্ত ব্যক্তিদের বাড়িসহ বেশ কয়েকটি বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৪ এপ্রিল শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ৯০ বছরের এক বৃদ্ধ ঢাকার কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যান। আর গত ২৬ এপ্রিল ডামুড্যা পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডে নিজ বাড়িতে ৪৫ বছরের এক ব্যক্তি মারা যান।


error: Content is protected !!