শুক্রবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং, ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৯ই জমাদিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী
শুক্রবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহবুর রহমান শেখ

শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহবুর রহমান শেখ

মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে শরীয়তপুর জেলার শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহি অফিসার নির্বাচিত হয়েছেন শরীয়তপুর সদর উপজেলার সাবেক নির্বাহি অফিসার মাহাবুর রহমান শেখ। বর্তমানে তিনি রাজবাড়ী জেলার এডিসি জেনারেল হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ঢাকা বিভাগের জেলা পর্যায়ে একজন করে শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহি অফিসার নির্বাচিত করা হয়েছে। এদের মধ্যে শরীয়তপুর জেলার শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহি অফিসার নির্বাচিত হয়েছেন সদর উপজেলার সাবেক নির্বাহি অফিসার মাহাবুর রহমান শেখ। ২৪ শে ডিসেম্বর ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার সম্মেলন কক্ষে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

উক্ত সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন।

উল্লেখ্য, মাহবুর রহমান শেখ শরীয়তপুর সদর উপজেলা নিবার্হী অফিসারের দায়িত্ব পালনকালীন সময় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত সকল নির্দেশনা কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করেন।

এছাড়া সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বাজারগুলোতে মনিটরিং ও মাস্ক নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিভিন্ন সময় জরিমানা করেন। এছাড়া বাজারের পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণ রাখার জন্য নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছেন ও কাঁচাবাজার গুলোতে ভিড় না হওয়ার জন্য শরীয়তপুর ঢাকা আঞ্চলিক মহাসড়কের দু’পাশে কাঁচাবাজার উঠিয়ে নেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহবুর রহমান শেখ। এ কারণে তিনি সর্বমহলে প্রশংসা পান।

পরবর্তীতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সারাদেশে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বাজার চালু রাখার প্রজ্ঞাপন জারি করে। এ সময় শরীয়তপুর সদর উপজেলার নির্বাহি অফিসার মাহবুর রহমান শেখ করোনাকালীন বাজার নিয়ন্ত্রণে কঠোর পদক্ষেপ নিয়ে অনন্য ভূমিকা পালন করেন। এছাড়া উপজেলা মাঠ প্রাঙ্গণে শিশুদের বিনোদনের জন্য শেখ রাসেল নামে একটি বিনোদন কেন্দ্র গড়ে তুলেন, এতে তিনি সবার প্রশংসা পান। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে দায়িত্ব পালনকালে মাহবুর রহমান শেখ দিনরাত করোনা আক্রান্ত রোগীদের পাশে গিয়ে দাঁড়িয়েছেন এবং প্রশংসার দাবিদার হন।