শনিবার, ২৬শে নভেম্বর, ২০২২ ইং, ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২রা জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
শনিবার, ২৬শে নভেম্বর, ২০২২ ইং

শরীয়তপুর-চাঁদপুর ফেরী ঘাটে যানজট

শরীয়তপুর-চাঁদপুর ফেরী ঘাটে যানজট

নাব্যতা সংকটে শরীয়তপুরের অন্যান্য ঘাটে ফেরী চলাচল বন্ধ থাকায় ও ফেরী সংকটের কারনে শরীয়তপুর-চাঁদপুর ফেরী ঘাটে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার থেকে সৃষ্ট এ যানজটের কারনে চরম ভোগান্তিতে পড়ে এই রুটে মালামালবাহী ও যাত্রীবাহি পরিবহন।
ঘাট সূত্রে জানা গেছে, শরীয়তপুর-চাঁদপুর ফেরী ঘাট দিয়ে খুলনা, বাগেরহাট, বরিশাল ও ফরিদপুর সহ দক্ষিণাঞ্চলের প্রায় ২১টি জেলার হাজার হাজার যানবাহন পারাপার হতো। কিন্তু সড়কের বেহাল দশার কারনে ১ বছর ধরে এ রুটে যানচলাল প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। কিছুদিন ধরে পুনরায় এ সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল শুরু হয়েছে। ঘাটের ৪টি ফেরীর মধ্য থেকে এমভি কুসুম কলি নামে একটি ফেরী রেখে অপর ৩টি ফেরী অন্যত্রে সরিয়ে নেয় বিআইডাব্লিউটিসি।
গত কয়েক দিন ধরে পদ্মায় নাব্যতা সংকটের কারনে মাওয়া ঘাট দিয়ে ফেরী পারাপার বিঘিœত হয়। ফলে শরীয়তপুর-চাঁদপুর ফেরী ঘাটে যানবাহনের চাপ বাড়তে থাকে। কিন্তু পর্যাপ্ত ফেরী না থাকায় এ ঘাটের খায়ের পট্টি পর্যন্ত বাস, ট্রাক ও কার্গোর দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হয়েছে। পরবর্তীতে গাড়ির চাপ সামলাতে অন্য ঘাট থেকে এমভি কস্তুরী ও এমভি করবী নামের আরো দুটি ফেরী আনা হলেও যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে এমভি করবী নামে ফেরীটি এখনও সচল হয়নি।
বরিশাল থেকে আসা কার্গো চালক পারভেজ মিয়া ও আব্দুর রশিদ বলেন, রাস্তা খারাপ এর সাথে আবার ফেরীও কম চলছে। আমাদের জন্য চট্টগ্রামে জাহাজ অপেক্ষা করছে। কিন্তু ফেরী কম থাকায় দুই দিনেও পারাপার হতে পারছিনা। তাছাড়া এখানে সিরিয়াল ভেঙ্গে অনেক গাড়ি আগে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। অনিয়মের কারনে আমাদের আরও বিলম্ব হচ্ছে।
ট্রাক চালক ইব্রাহীম ও মাসুদ মিয়া বলেন, গতকাল রাত থেকে ঘাটে এসেছি কিন্তু এখনো পার হতে পারিনি তবে একদিন আগে গাড়ির চাপ আরো বেশী ছিল।
এ বিষয়ে শরীয়তপুর-চাঁদপুর ঘাটে দায়িত্বরত বিআইডাব্লিউটিসির সহকারী ম্যানেজার আব্দুস সাত্তার মিয়া বলেন, কয়েকদিন মাওয়া ঘাটে ফেরী চলাচল বন্ধ থাকায় এ ঘাটে যানবাহনের চাপ বেড়ে গিয়েছিল। ২টি ফেরী নিয়মিত চলাচল করায় এখন অনেকটা স্বাভাবিক রয়েছে।


error: Content is protected !!