সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ ইং, ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৭ই মুহাররম, ১৪৪৪ হিজরী
সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ ইং

২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে শরীয়তপুরে প্রস্তুতিমূলক সভা

২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে শরীয়তপুরে প্রস্তুতিমূলক সভা

২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালন এবং ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৯ উদযাপন উপলক্ষ্যে শরীয়তপুরে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (১১ মার্চ) সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার সভাপতি জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের কর্মকর্তা ও সুধীবৃন্দকে স্বাগত জানিয়ে সভার কার্যক্রম শুরু করেন। তিনি উল্লেখ করেন, দ্বিতীয় বারের মতো গণহত্যা দিবস পালন শুরু হলেও প্রস্তুতি নিয়ে এবারেই প্রথম এ দিবসটি উদযাপন হবে বিধায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের কর্মসুচি প্রণয়নের পূর্বে ২৫ মার্চের কর্মসুচি প্রণয়নের বিষয়ে উপস্থিত সকলকে মতামত ব্যক্ত করার অনুরোধ করেন। এরপর সভাপতির অনুমতিক্রমে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আব্দুল্লাহ আল মামুন তালুকদার মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় হতে প্রাপ্ত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার কার্যবিবরণী পাঠ করে শুনান। সভায় বিস্তারিত আলোচনা সাপেক্ষে জাতীয় কর্মসুচির আলোকে জাতীয় জীবনের অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস এবং ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৯ যথাযথ মর্যাদার সাথে উদযাপনের লক্ষ্যে শরীয়তপুর জেলায় কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।
শরীয়তপুরে কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ১২ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত স্কুল/কলেজ/মাদ্রাসাসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিশিষ্ট ব্যক্তি/বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কণ্ঠে ২৫ মার্চ গণহত্যার স্মৃতিচারণ আলোচনা সভা। ২৫ মার্চ বাদ জোহর সারাদেশে ২৫ মার্চের রাতে নিহতদের স্মরণে বিশেষ মোনাজাত, সুবিধামত সময়ে জাতির শান্তি ও অগ্রগতি কামনা করে বিশেষ প্রার্থনা, সন্ধ্যা ৬ টা ৩০ মিনিটে জেলার গুরুত্বপূর্ন স্থানে গণহত্যার উপর দূর্লভ আলোকচিত্র/প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শণী এবং জেলা শিল্পকলা একাডেমী মাঠে ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা, সন্ধ্যা ৭ টা ৩০ মিনিটে গণহত্যা ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গীতিনাট্য/সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও রাত ৯ থেকে ৯টা ১ মিনিট পর্যন্ত শহরের গুরুত্বপূর্ন স্থানে সারাদে প্রতীকি ব্ল্যাক-আউট ১ মিনিটের জন্য। ১২ থেকে ২৬ মার্চ পর্যন্ত স্ব স্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের তাৎপর্য এবং উন্নয়ন অগ্রগতি” বিষয়ে আলোচনা। ২৫ মার্চ সকাল ৯টায় শরীয়তপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে চিত্রাংকন, ক্রীড়া ও সুন্দর হাতের লেখা প্রতিযোগিতা ও বেলা ১১ টায় জেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ে মহিলাদের অংশগ্রহণে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক আলোচনা সভা। ২৬ মার্চ সুর্যদয়ের সাথে সাথে সকল সরকারী-আধা সরকারী ও বেসরকারী ভবনের শীর্ষে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন, শরীয়তপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ৩১ বার তোপধ্বনি ও পুষ্পস্তবক অর্পন, সকাল ৬ টা ৪৫ মিনিট হতে মনোহরবাজার স্মৃতিস্তম্ভ, আটিপাড়া গণকবর ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের কবর জিয়ারত। সকাল ৮টায় শরীয়তপুর স্টেডিয়ামে জেলা প্রশাসক কর্তৃক আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, ৮ টা ১৫ মিনিটে পুলিশ, কারারক্ষী, আনসার ও ভিডিপি, বিএনসিসি, বয়েজ স্কাউট, কাবদল ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে কুচকাওয়াজ ও শরীরচর্চা প্রদর্শনী। সকাল ১০ টায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের ক্রীড়ানুষ্ঠান, দুপুর ১২টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান, বাদ জোহর জেলার সকল মসজিদে জাতির শান্তি ও অগ্রগতি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত ও মিলাদ মাহফিল, সুবিধামতো সময়ে জেলার সকল মন্দির ও অন্যান্য উপাসনালয়ে জাতির শান্তি ও অগ্রগতি কামনা করে বিশেষ প্রার্থনা। দুপুর ২টায় হাসপাতাল, শিশু পরিবার, জেলখানা, ও এতিমখানায় উন্নতমানের খাবার পরিবেশন বিকাল ৪টায় শরীয়তপুর স্টেডিয়ামে প্রীতিফুটবল খেলা ও সন্ধ্যায় জেলা শিল্পকলা একাডেমী মাঠে স্বাধীনতা দিবসের উপর আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
প্রস্তুতিমূলক সভায় অন্যান্যের মধ্যে সিভিল সার্জন ডাঃ খলিলুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর হায়দার, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে, জেলা জর্জকোর্টের জিপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এ্যাড. আলমগীর মুন্সী, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের সমন্বয়কারী তানিয়া আফরিন, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সামাদ তালুকদার, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড আব্দুর রাজ্জাক সরদার, সদর উপজেলা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার আব্দুল আজিজ শিকদার, সাবেক জেলা সহকারী কমান্ডার শওকত আলী মাদবর, মুনসুর আহমেদ, সাবেক উপজেলা ডেপুটি সমান্ডার সিরাজুল ইসলাম (ইউনুস), সাবেক জেলা সহকারী কমান্ডার সেকান্দার ঢালী, আব্দুর রশিদ, মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা ছোরহাব কাজী, মুক্তিযোদ্ধা হাফেজ খান, মুক্তিযোদ্ধা মাহবুব হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা খবির উদ্দিন, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাষ্টের সহকারী পরিচালক এসএম জাকির উল আলম, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ফিল্ড অফিসার লুৎফর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা জলিলুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা আলী আহম্মেদ সরদার, মুক্তিযোদ্ধা শিকদার ইদ্রিস আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম মিয়া, পল্লী বিদ্যুতের জিএম সোহরাব আলী বিশ^াস, জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপপরিচালক খাদিজাতুন আছমা, সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সামিনা ইয়াছমিন, জেলা জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান এ্যাড. রওশন আরা, জেলার এনামুল কবির, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শ্যামল চন্দ্র শর্মা, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিশ^জিৎ বৈরাগী, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।


error: Content is protected !!