সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ ইং, ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৭ই মুহাররম, ১৪৪৪ হিজরী
সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ ইং

শরীয়তপুরে বাল্যবিয়ের অপরাধে বর ও কণের পিতাকে দন্ড প্রদান

শরীয়তপুরে বাল্যবিয়ের অপরাধে বর ও কণের পিতাকে দন্ড প্রদান

শরীয়তপুরে বাল্যবিবাহ প্রদানের অপরাধে কণের পিতা ও বাল্যবিবাহ করতে আসা বরকে দন্ড দিয়েছে শরীয়তপুরের ভ্রাম্যমান আদালত। ২৫ জুন মঙ্গলবার বিকাল ৫ টায় এই আদেশ প্রদান করেন শরীয়তপুর সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জিনিয়া জিন্নাত।
দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন কণের পিতা শরীয়তপুর পৌরসভার তুলাসার গ্রামের অটোবাইক চালক শফিকুল ইসলাম স্বপন ও বর নাটোর সদর পৌরসভার আলাইপুর (ধোলাইপাড়া) গ্রামের মো. রুহুল আমিন খানের পুত্র বর মো. রফিকুল হাসান খান (৪০)। এরপূর্বে ২৪ জুন রাত ১১টার সময় শরীয়তপুর পৌরসভার তুলাসার গ্রামের কণের পিত্রালয় থেকে তাদের আটক করে পালং মডেল থানা পুলিশ।
পালং থানা, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় সূত্র ও নোটারী হলফ নামা থেকে জানায়, তুলাসার গ্রামের মো. সফিকুল ইসলাম স্বপনের মেয়ে জুলিয়া আক্তার (১৭) ও বর মো. রফিকুর ইসলাম খান রমজান মাসে শরীয়তপুর নোটারী পাবলিক কার্যালয়ে গিয়ে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার জন্য হলফ নামা প্রদান করে। হলফ নামায় উল্লেখ থাকে তারা ঈদুল ফিতরের পরে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হবে। সেই থেকে বর রফিকুল ইসলাম কণের পিত্রালয়ে অবস্থান করতে থাকে। ইতোমধ্যে কণের পরিবারের সাথে বর রফিকুল ইসলামের সম্পর্কের ঘাটতি হয়। পরে কণের পরিবার পালং মডেল থানায় অভিযোগ করে বর রফিকুল ইসলামকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়। পালং পডেল থানা পুলিশ বর, কণে ও কণের পিতাকে শরীয়তপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে উপস্থিত করেন। সেখানে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে কণের পিতাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও বরকে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন। এ মামলায় প্রসিকিউশন প্রদান করেছেন পালং মডেল থানার উপসহকারী পরিদর্শক (এসআই) কাজী নজরুল ইসলাম। উল্লেখ থাকে কণের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত কণেকে বিয়ে দেয়া যাবে না।


error: Content is protected !!