শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ ইং, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ ইং

ডামুড্যায় করোনা সচেতন মাস্ক পড়া নিয়ে তর্কের জেরে চেয়ারম্যানসহ ৪ জনকে কুপিয়ে জখম

ডামুড্যায় করোনা সচেতন মাস্ক পড়া নিয়ে তর্কের জেরে চেয়ারম্যানসহ ৪ জনকে কুপিয়ে জখম

শরীয়তপুরে ডামুড্যা উপজেলায় করোনা সচেতনতামূলক ও মাস্ক পরা নিয়ে তর্কের জেরে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানসহ চারজনকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। এ সময় তাদের বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার সিড্যা আমিনবাজারে কাইচকুড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- ডামুড্যা উপজেলার সিড্যা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন আমীন (৬৫), তার স্ত্রী মমতাজ বেগম (৫০), ছেলে রাব্বি আমীন (৩০) ও ভাতিজা চৈতন (১৮)।

অভিযোগে জানা যায়, সোমবার সকালে সিড্যা আমিনবাজারে কাইচকুড়ি গ্রামের গিয়াসউদ্দিন ঢালী (৫০) কলা বিক্রির জন্য আসেন। তখন তার মুখে মাস্ক না থাকায় সিড্যা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের ছেলে রাব্বি মাস্ক কোথায় এবং কেন পরেননি, জিজ্ঞাসা করেন।

এতে গিয়াসউদ্দিন ঢালী বিভিন্ন ধরনের কথা বলেন এবং তার সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে যান। স্থানীয়দের সাহায্যে মীমাংসা হয় ব্যাপারটি।

পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে গিয়াসউদ্দিন ঢালীর নেতৃত্বে কাইচকুড়ির ২০-২৫ জন দলবল নিয়ে প্রথমে রাব্বি আমীনের ওপর, পরে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও তার স্ত্রীর ওপর হামলা চালায়। এতে চারজন আহত হন।

প্রত্যক্ষদর্শী কোরবান আলী ঢালী বলেন, দীর্ঘদিন ধরে রাব্বিসহ ইউনিয়নের বিভিন্ন লোক মাইকের মাধ্যমে করোনা সচেতনতার প্রচার করে আসছেন। পাশাপাশি মাস্ক ও সাবান বিতরণ করছেন।

সোমবার সকালে আমিনবাজারে গিয়াসউদ্দিন ঢালী কলা বিক্রি করার জন্য আসেন মাস্ক ছাড়াই। পথের মধ্যে রাব্বি ধরে জিজ্ঞাসা করেন আপনার মাস্ক কই; তখন গিয়াস বলেন, পকেটে আছে। এ সময় রাব্বি পরেন না কেন? প্রশ্ন করতেই তুই-তোকারি করেন গিয়াসউদ্দিন।

পরে থামতে বললে আরও বেশি তর্ক করেন, আর তোকে দেখে নেব বলেন। পরে বিষয়টি মীমাংসা হয়। পরে রাতেই দলবল নিয়ে চেয়ারম্যানসহ চারজনের ওপর হামলা হয়েছে।

সিড্যা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন বলেন, রাত সাড়ে ৮টার দিকে আমাকে কাইচকুড়ি থেকে একজন মোবাইলে ফোন করেন, এ সময় তিনি বলেন, আমার ছেলে রাব্বিকে সরে যাইতে। ওকে মারার জন্য কারা যেন আসছে।

এ নিয়ে রাব্বিকে ফোন দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে দেখি রাব্বি দৌড়ে এসে দরজায় পড়ে যায়। পড়ে যাওয়া অবস্থায় কয়েকজন ওর পায়ের ওপর হকিস্টিক দিয়ে বাড়ি দিতে থাকে।

আমি জোরে চিৎকার দিলে ওরা আমার ওপর হামলা করে। আমাকে বাঁচাতে আমার স্ত্রী এলে তার মাথায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ দেয়া হয়। কে বা কারা এখনই তা বলা যাবে না। তবে আমি কয়েকজনকে চিনেছি।

এ ব্যাপারে ডামুড্যা থানার ওসি মেহেদী হাসান বলেন, সিড্যা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন আমীনের ওপর হামলা হয়েছে। আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তবে এখনও কেউ কোনো মামলা করেননি। মামলা হলে অবশ্যই আইনি ব্যবস্থা নেব।


error: Content is protected !!