শনিবার, ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং, ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
শনিবার, ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং

ঘরে গর্ভবতী স্ত্রী রেখে, ডামুড্যার এসিল্যান্ডের বিরামহীন দায়িত্ব পালন

ঘরে গর্ভবতী স্ত্রী রেখে, ডামুড্যার এসিল্যান্ডের বিরামহীন দায়িত্ব পালন
ঘরে গর্ভবতী স্ত্রী রেখে, ডামুড্যার এসিল্যান্ডের বিরামহীন দায়িত্ব পালন

দেশ জুড়ে বাড়তে শুরু করেছে করোনাভাইরাসের আধিপত্য। যখন গোটা দেশে চলছে অঘোষিত লকডাউন তখনই নিজের জীবনের নিরাপত্তার কথা না ভেবে হোম কোয়ারিন্টিন নিশ্চিত, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, দুস্থ ও অসহায় মানুষের কাছে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছানো, বাজারগুলোতে দ্রব্যমূল্যের নিয়ন্ত্রণ, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা মানুষকে কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত ও মানুষকে ঘরে ফেরাতে কাজ করে যাচ্ছেন ডামুড্যার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল্লাহ আল মামুন। প্রতিদিন করোনার সাথে যুদ্ধ করে চলেছেন তিনি।

মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ ও নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য নিরলসভাবে কাজ করছেন তিনি। সকাল হলেই প্রতিদিন বেড়িয়ে পড়েন উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে। সারাদিন সচেতনতার কাজ করে রাতে ফেরেন বাসায়। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে কখনও পুলিশ সদস্য আবার কখনও সেচ্ছাসেবী সংগঠন অথবা একা নিজেই রাত-দিন মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন এসিল্যান্ড।

জানা গেছে, করোনা মোকাবেলায় সরকারি নির্দেশনা অমান্য করায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে এ পর্যন্ত ৯১ জনকে মামলা দেওয়া এবং ১ লাখ ৫৪ হাজার ১০০ টাকা জরিমানা করেছেন এই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রটে। এর মধ্যে ১২ জনকে হোমকোয়ারেন্টাইন আদেশ অমান্য করায় জরিমানা করা হয়। এছাড়া তিনি গোসাইরহাট উপজেলায় দায়িত্ব পালনকালে তিনি মাছুয়াখালী ইউনিয়নের গুচ্ছ গ্রামের ২৫ জন সাধারণ লোককে সরকারী ঘর দিয়েছেন। তিনি ডামুড্যা ১০ জনকে ভিপি নামজারি করে দিয়েছেন। ১০০ লোকের তালিকা রেডি আছে যাদেরকে ঘর দেওয়া হবে।

স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য মতে, ডামুড্যায় ৮ জন করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ১ জন মারা গেছে। সবাই ঢাকা ফেরত। ৪২ টি বাড়ী লকডাউন করা হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সকাল ৮ টায় এসিল্যন্ডের দেখা মিললো ধানকাঠি বাজারে মানুষকে সচেতনতা করার লক্ষ্যে সচেতনতার মাইকিং করছে। মানুষকে বোঝাচ্ছেন তারা যেন সামাজিক দূরত্ব মেনে চলেন। অযথা দোকানে ভিড় না করেন। বলেন মুদি দোকান, ওষুধের দোকান, কৃষি পণ্যের দোকান, কাঁচা বাজার ছাড়া আর কোনো দোকান খোলা থাকবে না।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল্লাহ আল মামুন ব্যাক্তিগত আলাপচারিতায় বলেন, তিনি একজন পাকিস্তান আর্মি ফেরত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। সে বাবা মায়ের চতুর্থ সন্তান। তার গ্রামের বাড়ি বাগেরহাট জেলার মোল্লার হাট উপজেলায়, সে পরপর তিন বার বিসিএস ক্যাডার হয়েছেন।

সহকারী কমিশনার ( ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, উপজেলাবাসী যেভাবে নিরাপদে থাকবে তা আমরা করছি। এই করোনা যুদ্ধে নিজের শেষটুকু দিয়ে যেতে চাই। জনসাধারণকে সচেতন করতে পারলেই এ যুদ্ধে আমরা জয়ী হতে পারবো। ঘরে যেতে ভয় হয়। স্ত্রী ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা তার দিকেও খেল রাখতে হয়। আমার স্ত্রী ফাতিমা মাহজাবিন, সে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের ডাক্তার। এই সংকটকালে সেও নিয়মিত চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন।
বাসায় গিয়ে বাহিরের সব জামা কাপড় পরিষ্কার করে দেই। তারপরও পিছপা হবো না। করোনা এই যুদ্ধে আমরা উপজেলার সকল মানুষকে নিয়ে জয়ী হবোই।এটা শুধু আমার দাপ্তরিক দায়িত্ব না এটা আমার নৈতিক দায়িত্ব।


error: Content is protected !!