মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ই জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং

ডামুড্যায় মিথ্যা মামলার হয়রানীর স্বীকার এক কৃষক

ডামুড্যায় মিথ্যা মামলার হয়রানীর স্বীকার এক কৃষক

মিথ্যা মামলার আসামী হয়ে হয়রানীর স্বীকার হলেন শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যা উপজেলার পূর্ব-ডামুড্যা ইউনিয়নের চরঠেঙ্গার বাড়ি গ্রামের মৃত. মো: রশিদ মাঝির ছেলে কৃষক মো. মতি মাঝি (৫৯)। কৃষক মতি মাঝি বলেন, আমি একজন কৃষক। নিজ গ্রামে কৃষিকাজ করেই আমার জীবন-যাপন। অথচ আমাকে ব্যবসায়ী বানিয়ে কিশরগঞ্জের পশ্চিম তারাপাশা গ্রামের আমার অচেনা কোন এক ব্যক্তি মৃত মো.সিরাজ্উদ্দিনের ছেলে মো.জালালউদ্দিন তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা আমার নিকট পাওয়ানা এই মর্মে গত ২ এপ্রিল কিশরগঞ্জ ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধি ৬৮ ধারামতে সমন জারী করে ১৮১(১)১৮;৪০৬/৪২০ ধারা অনুযায়ী একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। উক্ত ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত আমাকে ৮ মে মামলার হাজিরা দিতে আদেশ করেন। এবং আমি আইনকে সম্মান করে হাজিরা দেই। এ মামলা মিথ্যা ও সাজানো এই মর্মে আদালতে আরজিও পেশ করি। তিনি বলেন, জালালউদ্দিন নামে কোন ব্যক্তিকে আমি চিনি না। আমি কোনদিন মামলার পূর্বে কিশরগঞ্জে যাই নি। অথচ কি কারনে আমাকে হয়রানী মামলা করলো তাও বুঝতে পারছি না। এ মিথ্যা মামলা উপলক্ষে তার প্রতিবেশী আব্দুল জলিল মোল্লাকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, এটা একটি হয়রানীমূলক মামলা। মতি ভাই একজন সহজ সরল ভাল মানুষ। তিনি এলাকায় কৃষিকাজ করেন। কিশরগঞ্জে কোনদিন গিয়েছে কিনা জানা নেই। তিনি কোনদিন ব্যবসা করেছেন এমন কথা কোনদিন শুনি নাই। এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি মোহাম্মদ আলী বলেন, এটা মিথ্যা মামলা। এলাকার কেউ শত্রুতা করে এ কাজ করতে পারে বলে ধারনা তার। মতি মাঝির সাথে এমদাদ মাঝী, বছির ছৈয়াল, শাহাবুদ্দিন ছৈয়াল ও মনির মাঝীদের দীর্ঘদিন জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এ জেরে হয়তো বা অর্থদন্ডের জন্য জালালউদ্দিনকে মিথ্যা মামলায় নাম ব্যবহার করতে পারে। এ মামলায় আমরা এলাকাবাসী হতবাক।


error: Content is protected !!