শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ ইং, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ ইং

শরীয়তপুরে বাবাকে কালা জাদুকর বলে কলেজ ছাত্রী সহ পরিবারকে মল খাওয়ালো প্রতিপক্ষ

শরীয়তপুরে বাবাকে কালা জাদুকর বলে কলেজ ছাত্রী সহ পরিবারকে মল খাওয়ালো প্রতিপক্ষ
শরীয়তপুরে বাবাকে কালা জাদুকর বলে কলেজ ছাত্রী সহ পরিবারকে মল খাওয়ালো প্রতিপক্ষ

পূর্বশত্রুতার জের ধরে গত শনিবার এক কলেজছাত্রী, তাঁর বাবা ও দাদিকে মানুষের মল খাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলায়।

১২ এপ্রিল রোববার রাতে ওই ছাত্রীর বাবা ৮ ব্যক্তিকে আসামি করে জাজিরা থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ অভিযুক্তদের ১ জনকে গ্রেফতার করেছেন।

ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ,জমিজমা নিয়ে বিরোধের জেরে স্থানীয় জলিল সিকদার ও আয়নাল হকের নেতৃত্বে এ ঘটনা ঘটানো হয়।

ওই তিনজন জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেন। জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান ১৩ এপ্রিল সোমবার বলেন, আমার চিকিৎসকজীবনের । এমন অমানবিক আচরণ কোনো মানুষ অন্য মানুষের সঙ্গে করতে পারে, দেখিনি। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১০ জন চিকিৎসক জরুরি বিভাগে এই তিনজনকে চিকিৎসা দিয়েছেন। তাঁরা কিছুটা সুস্থ বোধ করায় গতকাল সন্ধ্যায় স্বজনেরা তাঁদের বাড়ি নিয়ে যান। তবে তাঁরা মানসিকভাবে অসুস্থতার মধ্যে আছেন।

জাজিরা থানার পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, জাজিরার ভুক্তভোগী ব্যক্তি পেশায় ভ্যানচালক। তাঁর সঙ্গে জমিজমা নিয়ে স্থানীয় জলিল সিকদারের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে । জলিল হঠাৎ গ্রামে প্রচার করতে থাকেন যে ওই ভ্যানচালক কালো জাদু করে মানুষের ক্ষতি করছেন। তাঁকে ঠিক করতে মল খাওয়াতে হবে। শনিবার সকাল ছয়টার দিকে জলিল সিকদার ও আয়নাল হকের নেতৃত্বে ৮ থেকে ১০ জন ওই ভ্যানচালকের বাড়িতে যান। তাঁকে ঘর থেকে টেনে হিচরে বের করে এনে মল খাইয়ে দেন। এরপর তাঁর স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়ে বাবাকে রক্ষার জন্য এগিয়ে আসলে তাকে ও মল খাইয়ে দেওয়া হয়। বাধা দিতে এলে ওই ব্যক্তির মাকেও মল খাইয়ে দেওয়া হয়। এ সময় তাদের তিনজনকেই মারধর করা হয়। পরে পরিবারের অন্য সদস্যরা ওই তিনজনকে উদ্ধার করে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গত শনিবার ওই কলেজছাত্রী বলছিলেন, এমন অমানবিক আচরণ কোনো মানুষ কীভাবে করতে পারেন? জলিল ও আয়নাল আমার বাবাকে হাত–পা ধরে রেখে মল খাইয়ে দেন। আমি এগিয়ে গেলে আমার সঙ্গেও একই আচরণ করেন। আমি বাঁচার জন্য তাদের পা ধরেছি। কোনো লাভ হয়নি। ওরা আমদের কে অনেক মারধর করেন। এরপর আমি অচেতন হয়ে পড়ি।

ওই ভ্যানচালক বলেন, এমন শত্রুতা মানুষ মানুষের সঙ্গে করে? আমার সঙ্গে বিরোধ ছিল, আমর সাথে অন্যভাবে ঝগড়া করতে পারতো। তাই বলে এমন অমানবিক আচরণ করবে? তিনি বলেন, জলিল, আয়নালসহ নয়জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। তিনি তাঁদের ক্দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবি করেন।

অভিযুক্ত জলিল শিকদার বলেন, এলাকার একজন লোককে ওই ভ্যান চালক কালা জাদুকরে মেরে ফেলেছেন। তারাই আমাকে মল খাওয়াতে বলেছেন। আায়নাল হক বলেন, ওই ভ্যান চালকের সাথে আমার কোন শত্রুতা নেই তাদের মল খাওয়ানো এলাকার লোকজনের সিদ্ধান্ত।

জাজিরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজহারুল ইসলাম খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এই ঘটনায় ৮ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এটা খুবই ন্যাক্কারজনক ঘটনা। এই ঘটনা শোনার পরপরই পুলিশ তৎপর হয়। তাৎক্ষণিক এলাকায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত হাফিজ শিকদার নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যান্য আসামিদের গ্রেপ্তার করে দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

এব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, তদন্তের স্বার্থে আমি এ ব্যাপারে আপডেট কোনো তথ্য দিতে পারছিনা, তবে নিশ্চিত থাকেন ঘটনার বিচার হবে।


error: Content is protected !!