সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ ইং, ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২২শে শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরী
সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ ইং

জাজিরায় পাওনা টাকা নিতে এসে হামলার শিকার ব্যবসায়ী

জাজিরায় পাওনা টাকা নিতে এসে হামলার শিকার ব্যবসায়ী

শরীয়তপুরের জাজিরায় পাওনা টাকা নিতে এসে গোলাম কিবরিয়া নামে এক ব্যবসাী মামলার শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত বুধবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে ঢাকা থেকে এসে জাজিরা উপজেলার পালেরচর ইউনিয়নের মোল্লা কান্দী গ্রামের খবির মোল্লার বাড়িতে গিয়ে তিনি হামলার শিকার হন। গোলাম কিবরিয়া মুন্সিগঞ্জ সদরের নগর কসবা গ্রামের গোলাম রসুলের ছেলে। সে ঢাকার হাতিরপুলে মোতালেব প্লাজায় মোবাইল ও মোবাইল সরঞ্জাম ব্যবসায়ী এবং সাংবাদিক। জাজিরার মোল্লা কান্দি গ্রামের খবির মোল্লার ছেলে জিয়া মোল্যা, জুয়েল মোল্লা ও আতিক মোল্লার সাথে তার ব্যবসায়িক লেনদেন হয়েছে।

মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গোলাম কিবরিয়ার দোকান ঢাকা মোতালেব প্লাজা থেকে বিভিন্ন সময় মোবাইলের ফোন, মেমোরি কার্ড ও অন্যান্য মালামাল ক্রয় করে ৪৮ লাখ টাকার মালামাল নেন খবির মোল্যর ছেলে জিয়া মোল্যা, জুয়েল মোল্লা ও আতিক মোল্লা। ৪৮ লাখ টাকার মধ্যে ১৮ লাখ টাকা তারা পরিশোধ করেন। বাকি ৩০ লাখ টাকা এখনো পরিশোধ করেনি। গোলাম কিবরিয়া পাওনা টাকা চাইলে হামলাকারীরা আজ দেই কাল দেই করে পাঁচ বছর যাবৎ ঘুরাচ্ছে এবং টাকা না দেয়ার তালবাহানা করছে। গত বুধবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে গোলাম কিবরিয়া ঢাকা থেকে খবির মোল্লার বাড়ি গিয়ে পাওনা টাকা চাইলে জিয়া মোল্লা গোলাম কিবরিয়াকে গালাগাল করে। গালাগাল করতে নিষেধ করায় জিয়া মোল্লা, জুয়েল মোল্লা, আতিক মোল্লা, রাজিয়া বেগম, তোফাজ্জল মোল্লা, খবির মোল্লা সহ আরো অনেকে গোলাম কিবরিয়াকে ঘিরে ধরে এলোপাতাড়ি মারধর করে এবং তার কাছে থাকা ৮০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেন। স্থানীয়দের সহায়তায় গোলাম কিবরিয়া হামলা থেকে কোনমতে রক্ষা পেয়ে আহত অবস্থায় জাজিরা উপজেলা হাসপাতালে গিয়ে ভর্তি হন। এ ঘটনায় জাজিরা থানায় মামলা দায়ের করেন গোলাম কিবরিয়া।

গোলাম কিবরিয়া বলেন, পাওনা টাকা চাইতে গেলে খবির মোল্লা ও ছেলে জিয়া মোল্লা, জুয়েল মোল্লা, আতিক মোল্লা সহ তাদের লোকজন আমাকে হত্যা করে গুম করার উদ্দেশ্যে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমার উপর হামলা করে। আমার ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে আমাকে রক্ষা করে। এ ঘটনায় আমি মামলা করেছি। আমি আমার পাওনা টাকা ও হামলার বিচার চাই।

এ বিষয়ে জানার জন্য খবির মোল্লার বাড়িতে গিয়ে তাকে ও তার ছেলেদের পাওয়া যায়নি। খবির মোল্লার স্ত্রী বলেন, তনাই মোল্যা দরবার সালীশ করে এ বিষয়ে মিমংসা করে দিয়েছে। এখন গোলাম কিবরিয়া আর কোন টাকা পাবেনা। তারপরও সে আমাদের বাড়িতে এসে আমাদের গালাগালি ও হুমকিধমকি দিচ্ছে। আমার ছেলেরা তাকে মারেনি। সে মিথ্যা নাটক করছে।

এ বিষয়ে জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ফারুক আহম্মদ বলেন, থানায় মামলা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।