বৃহস্পতিবার, ৬ই মে, ২০২১ ইং, ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে রমজান, ১৪৪২ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ৬ই মে, ২০২১ ইং

শরীয়তপুরে ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে ৮ মাস গর্ভের সন্তান হত্যা

শরীয়তপুরে ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে ৮ মাস গর্ভের সন্তান হত্যা

শরীয়তপুরে প্রসূতি এক গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে বেদম মারধরের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় প্রসূতি ওই নারীর ৮ মাসের বাচ্চা গর্ভেই মারা যায়। বুধবার রাতে ওই নারীর মৃত সন্তান সদর হাসপাতালে জন্ম দেয়। ধর্ষণ চেষ্টা ও হত্যার ঘটনায় নড়িয়া থানায় অভিযোগ করেন ওই গৃহবধুর স্বামী।

সোমবার নড়িয়া উপজেলার ভোজেশ্বর এলাকার এক প্রসূতি গৃহবধূ সকালে নামাজ পড়ে হাটতে গেলে এই সুযোগে পার্শ্ববর্তী ইউনুছ রাঢ়ি ওই গৃহবধুকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় গৃহবধূ তার হাত থেকে বাঁচার জন্য ধর্ষকের হাতে কামড় দিয়ে আত্মচিৎকারে ধর্ষক ইউনুছ রাঢ়ি’র বাড়ির লোকজন ছুটে এলে উল্টো ধর্ষক ও তার পরিবারের কয়েক জন মিলে ওই গৃহবধুকে বেদম মারধর করে। এ সময় ওই নারীর চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

এলাকাবাসী জানায়, সোমবার ওই নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে ইউনুছ রাড়ি। এ সময় ওই গৃহবধুর চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে তাকে মারধর করে বাগানে রেখে চলে যায়। পরে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় অসুস্থ ওই গৃহবধুকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কিছু দিন আগে ওই নারীর পরিবারের সাথে ধর্ষণ চেষ্টাকারী ইউনুছ রাঢ়ি’র পারিবারিক ঝগড়া হয়েছিলো, সেই শত্রুতার কারনে গৃহবধুকে ধর্ষন চেষ্টা করতে পারে। তারা এই ধর্ষেকর কঠিন শাস্তি দাবি করছে।

মামলা সুত্রে জানা যায়, ওই গৃহবধু সকালে নামাজ পরে হাটতে গেলে, স্থানীয় ইউনুছ রাঢ়ি ওই নারীকে পিছন থেকে এসে জড়িয়ে ধরে ধর্ষণের চেষ্টা করে, ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হলে তার পরিবারসহ তিনি ওই নারীকে মারধর করেন, এতে তার ৮ মাসের গর্ভের সন্তান মারা যায়। গত বুধবার রাতে ওই নারী মৃত সন্তান প্রসব করেন।

ওই গৃহবধু জানান, ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী সকালে নামাজ পড়ে হাটতে যাওয়ার পর, অভিযুক্ত ধর্ষণ চেষ্টাকারী ইউনুছ রাঢ়ি তাকে পিছন থেকে এসে তার শরীরে হাত দেয় এবং তাকে জড়িয়ে ধরে। তার হাত থেকে বাঁচার জন্য তার হাতে কামড় দিয়ে চিৎকার করে বাঁচার জন্য চেষ্টা করে। তার চিৎকারে ধর্ষণ চেষ্টাকারী ইউনুছ রাঢ়ি’র বাড়ির লোকজন এসে উল্টো ওই নারীকে মারধর করে।

অভিযুক্ত ইউনুছ রাঢ়ি জানান, আমি সকালে মাছ বিক্রি করতে যাওয়ার সময় ওই নারী আমাকে জড়িয়ে ধরে, পূর্বের শত্রুতার জেরে আমাকে ফাঁসানোর জন্য এই নাটক করেছে ওই নারী। তবে মারধরের কথা এড়িয়ে যান অভিযুক্ত ধর্ষণ চেষ্টাকারী ইউনুছ রাঢ়ি।

হাসপাতাল সুত্রে জানা যায়, ওই নারীর ৮ মাসের গর্ভের সন্তান পেটেই মারা যায়। শুক্রবার সদর হাসপাতালে তার গর্ভপাতে মৃত সন্তান জন্ম হয়।

সদর হাসপাতালের স্ত্রীরোগ ও প্রসূতি বিদ্যা বিভাগের সিনয়র কনসালটেন্ট ডাঃ হোসনে আরা রোজি জানান, ওই নারীকে যেদিন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়, তার শারীরিক অবস্থা ভাল না দেখাতে তাকে কিছু পরীক্ষা দেয়া হয়। পরীক্ষাতে দেখা যায় ওই নারীর বাচ্চা মারা যায়। পরে বুধবার রাতে ওই নারী মৃত বাচ্চা প্রসব করে।

সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সনোলোজিষ্ট ডাঃ সোবহান জানান, ওই নারীকে যেদিন হাসপাতালে এনে ভর্তি করা হয়, সেদিন ওই নারীর বাচ্চা মারা যায়। ময়না তদন্ত ছাড়া বলা যাবে না কিভাবে তার বাচ্চা মারা গেছে।

এ বিষয়ে নড়িয়া থানার তদন্ত ওসি প্রবীণ চক্রবর্তী বলেন, বৃহস্পতিবার একটি ধর্ষণের চেষ্টা ও হত্যার উদ্দেশ্যপ্রণীত অভিযোগ এনে গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। আমরা লাশ ময়না তদন্তের ব্যবস্থা করেছি, তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিবো।