Sunday 21st July 2024
Sunday 21st July 2024

Notice: Undefined index: top-menu-onoff-sm in /home/hongkarc/rudrabarta.net/wp-content/themes/newsuncode/lib/part/top-part.php on line 67

নড়িয়ায় আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে স্থাপনা নির্মানের অভিযোগ

নড়িয়ায় আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে স্থাপনা নির্মানের অভিযোগ

নড়িয়ার ঘড়িষারে আদালত কর্তৃক জারীকৃত ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৪ ও ১৪৫ ধারা অমান্য করে নালিশী জমিতে পাঁকা স্থাপনা নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে ইতালি প্রবাসী মনির হোসেন ছৈয়ালের বিরুদ্ধে। নালিশী জমিতে শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় নড়িয়া থানা পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে।
মামলার আর্জি ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, মামলার বাদী মো. শাজাহান ছৈয়াল ও বিবাদী মনির হোসেন ছৈয়াল ঘড়িষারের বাহিরকুশিয়া গ্রামের মৃত আবুল কাশেম ছৈয়ালের পুত্র। তারা ২০০৭ সালের ২৪ জানুয়ারী ২২০ নং দলিল মূলে যৌথভাবে নালিশী জমি ক্রয় করেন। পরবর্তী ২০০৯ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারী পারিবারিক ভাবে বসে ক্রয়কৃত ভূমির আপোষ বন্টন করেন। সেই অনুযায়ী আইল-খুঁটি পুতিয়া চৌহদ্দি নির্ধারণ করে ভোগ দখল কায়েম করছে বাদী পক্ষ। লোভের বসবর্তি হইয়া বিবাদী পক্ষ সেই ভূমিতে জোর পূর্বক পাঁকা স্থাপনা নির্মাণের পায়তারা করে। বিবাদী পক্ষের অসৎ উদ্দেশ্য টের পেয়ে বাদী পক্ষ প্রথমে নড়িয়া থানায় অভিযোগ করেণ ও পরে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মিস পিটিশন ৩৬৯/২০১৯ নং মামলা দায়ের করেণ। আদালত নালিশী জমিতে শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য নড়িয়া থানাকে নির্দেশ প্রদান করেণ। নড়িয়া থানা পুলিশ নালিশী জমিতে শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য ২২ মে বিবাদী পক্ষকে নোটিশ প্রদান করেন। আদালত ও স্থানীয় থানার নির্দেশ অমান্য করে বিবাদী পক্ষ ২৯ মে বুধবার নালিশী জমিতে স্থাপনা নির্মানের কাজ পুনরায় শুরু করেন। পুলিশ সংবাদ পেয়ে এসে বিবাদী পক্ষের নির্মাণ কাজ আবার বন্ধ করে দেয়।
বাদী শাজাহান ছৈয়াল জানায়, নালিশী ভূমিতে একটা বিড়াট গর্ত ছিল। সেই গর্ত ভড়াট করে ভিটিতে রূপান্তর করেছে। এখন মহিলা মেম্বারের স্বামী নজরুল সরদারের কুপরামর্শে বিবাদী নালিশী ভূমি জবর দখলের চেষ্টা করছে। নজরুল এলাকায় এমন অনেক অপকর্ম করে থাকে। এখন আমার বিরুদ্ধে লেগেছে।
বিবাদীর স্ত্রী চাঁদনী বলেন, আমার স্বামী ও ভাসুর মিলে এ জমি ক্রয় করে। আমাদেরও এ জমিতে সমান অংশ আছে। আমি স্বামী-সন্তান নিয়ে ইতালি প্রবাসে থাকি। গ্রামের বাড়িতে আমাদের থাকার কোন ঘর নাই। ছুটিতে দেশে আসলে আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে থাকতে হয়। তাই আমাদের ক্রয়কৃত জমিতে ঘর নির্মানের কাজ শুরু করি। আমার স্বামী যাতে ঘর নির্মান করতে না পারে সেই লক্ষ্যে আমার ভাসুর শাজাহান ছৈয়াল থানা পুলিশ ও আদালত করেছে। আমরা যাতে ঘর নির্মাণ করতে না পারি সেই লক্ষ্যে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে সে।
মহিলা মেম্বার রাশিদার স্বামী নজরুল সরদার বলেন, বাদী ও বিবাদী উভয়ই আমার ফুফাতো ভাই। নালিশী জমি তাদের ক্রয়কৃত সম্পত্তি। সকলের সমান অংশীদার। এখন শাজাহান ছৈয়াল একা ভোগ দখল করার জন্য নানান তালবাহানা শুরু করেছে। আমি ন্যায় কথা বলায় বাদী আমার বিপক্ষে লেগেছে। আমি কোন অন্যায় করিনি।
নড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম মঞ্জুরুল হক আকন্দ বলেন, বাদী বিবাদী সহোদর। ভুল বোঝাবুঝির কারনে মামলা মোকদ্দমা হয়েছে। নালিশী জমিতে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় আছে। বুধবার বিবাদী পক্ষ নির্মাণ কাজ শুরু করেছিল। তাও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।