সোমবার, ১লা জুন, ২০২০ ইং, ১৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৯ই শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী
সোমবার, ১লা জুন, ২০২০ ইং

শরীয়তপুরে দুস্থদের পরিবারে ত্রাণ পৌছে দিলেন জেলা প্রশাসক

শরীয়তপুরে দুস্থদের পরিবারে ত্রাণ পৌছে দিলেন জেলা প্রশাসক
শরীয়তপুরে দুস্থদের পরিবারে ত্রাণ পৌছে দিলেন জেলা প্রশাসক

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে দুর্যোগকালীন সময়ে হতদরিদ্রদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করলেন শরীয়তপুর জেলা প্রশাসন। শনিবার (২৮ মার্চ) সকাল থেকেই ত্রাণ পূনর্বাসন ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে জেলার সকল উপজেলার নির্বাহী অফিসারগণকে ইউনিয়নের হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ত্রাণ পৌঁছে দেওয়ার আহবান জানান জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের। সে আলোকে জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের ত্রাণ সামগ্রীর একটি প্যাকেট নিয়ে রুদ্রকর ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের দুস্থ সুলতান খানের বাড়িতে উপস্থিত হন। প্যাকেটটিতে ১০ কেজি চাউল, ১ কেজি ডাল, ৫ কেজি আলু, ১ কেজি লবন, একটি সাবান দেয়া হয়েছে।
এছাড়াও সদর উপজেলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: মাহাবুর রহমান শেখ, জাজিরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম, নড়িয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার জয়ন্তী রুপা রায়, ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল-নাসীফ, ডামুড্যা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মর্তুজা আল মুঈদ, গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: আলমগীর হোসেন করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে দুর্যোগকালীন সময়ে হতদরিদ্রদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কমিটির ব্যক্তিবর্গদের নিয়ে ত্রাণ প্রতিটি ইউনিয়নের হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ত্রাণ পৌঁছে দেন।
ইউনিয়নের দুঃস্থ, অসহায় ও শ্রমজীবী হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে এ ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দেন প্রশাসন ও করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে দুর্যোগকালীন সময়ে হতদরিদ্রদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কমিটির ব্যক্তিবর্গরা। এছাড়া জেলার প্রতিটি ইউনিয়নে মোট ৩ হাজার ৯০০ টি পরিবারের মাঝে এ ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হয়।
এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের বলেন, যারা প্রান্তিক পর্যায়ের হতদরিদ্র তাদের মাঝেই এ করোনা ভাইরাসের দূর্যোগকালীন সময়ে ত্রাণ বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আর এর জন্য বিভিন্ন উপজেলায় ইউনিয়ন ভিত্তিক কমিটি করে দেয়া হয়েছে। সদর উপজেলায় ৭০০ টি, জাজিরা উপজেলায় ৭০০ টি, নড়িয়া উপজেলায় ৭০০ টি, ভেদরগঞ্জ উপজেলায় ৭০০ টি, ডামুড্যা উপজেলায় ৫৫০ টি ও গোসাইরহাট উপজেলায় ৫৫০ টি হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে। এছাড়া তিনি সাংবাদিকসহ সবাইকে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সতর্কতা অবলম্বন করেন।
সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: মাহাবুর রহমান শেখ, জাজিরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম, নড়িয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার জয়ন্তী রুপা রায়, ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল-নাসীফ, ডামুড্যা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মর্তুজা আল মুঈদ, গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: আলমগীর হোসেনকে এ বিষয়ে মুঠোফোনে জিজ্ঞাসাবাদে তারা বলেন, আমরা ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিদের বলেছি, যারা নিতান্তই অসহায় ও হতদরিদ্র তাদের মাঝেই এ ত্রাণ বাড়ি বাড়ি গিয়ে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে দুর্যোগকালীন ত্রাণ বিতরণ কমিটির ব্যক্তিবর্গরা পৌঁছে দিয়ে আসবে। সদর উপজেলার প্রত্যেকটি ইউনিয়নে এ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তারা আরও বলেন, ত্রাণ পূনর্বাসন ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর আমাদের হাতে ১০ কেজি চাল ও নগদ ২০০ টাকা দেওয়ার জন্য বলেছে। কিন্তু নগদ ২০০ টাকা দিয়ে তেল, ডাল, আলু, লবণ ও সাবান দেওয়ার ব্যবস্থা করেছি। সাধারণ মানুষ যাতে ঘর থেকে বের না হয় সেজন্য পুলিশ ও সেনাবাহিনী কাজ করছে। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা তাদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। সদর উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থান সমূহে জিবানুনাশক স্প্রে করা হচ্ছে।