শনিবার, ২০শে আগস্ট, ২০২২ ইং, ৫ই ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২২শে মুহাররম, ১৪৪৪ হিজরী
শনিবার, ২০শে আগস্ট, ২০২২ ইং

কালকিনিতে নবম শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষন, থানায় মামলা দায়ের

কালকিনিতে নবম শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষন, থানায় মামলা দায়ের

বিয়ের প্রলোভন দিয়ে মাদারীপুরের কালকিনিতে লিটন বাড়ৈ নামের এক সাবেক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে নবম শ্রেনীর এক ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১১ টার দিকে থানায় একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করেন ভূক্তভোগী পরিবার। ধর্ষক লিটন বাড়ৈ উপজেলার নবগ্রাম এলাকার ৮নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য। এদিকে ধর্ষিতার পরিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল ইসলামের কাছে ও একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
এলাকা, ভূক্তভোগী পরিবার ও মামলা সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার নবগ্রাম এলাকার নবগ্রাম কদমপট্টি গ্রামের যুবরাজ বাড়ৈর ছেলে ইউপি সদস্য লিটন বাড়ৈ ওই স্কুল ছাত্রীর বাড়ীর একটি পুকুরে মাছ চাঁষ করেন। এ সুত্র ধরে প্রথমে ওই ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক হয়। পরে তাকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে দীর্ঘদিন যাবত ধর্ষন করে আসছে ইউপি সদস্য লিটন বাড়ৈ। ধর্ষক লিটন বাড়ৈ গত ২১জুন রাতে পুনরায় ওই ছাত্রীকে ঘরে একা পেয়ে ধর্ষন করেন। এ ঘটনা জানাজানি হলে ধর্ষিতার পরিবার স্থানীয় কয়েকজন মাতুব্বরকে বিষয়টি জানান। পরে ধর্ষিতার পরিবার ধর্ষক লিটন বাড়ৈকে ওই ছাত্রীকে বিয়ের জন্য চাঁপ প্রয়োগ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ধর্ষক লিটন বাড়ৈ ওই স্কুল ছাত্রীকে মোটরসাইকেলে উঠিয়ে নিয়ে হত্যার চেষ্টা করেন। নিরুপায় হয়ে ধর্ষিতার পিতা বাদী হয়ে লম্পট ইউপি সদস্য লিটন বাড়ৈর নামে ডাসার থানায় একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করেন। এদিকে ধর্ষিতার পরিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল ইসলামের কাছে ও একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
ভূক্তভোগীর মা কান্না জরিত কন্ঠে বলেন, আমার মেয়ের সরলতা নিয়ে লম্পট মেম্বর লিটন বাড়ৈ দীর্ঘদিন যাবত ধর্ষন করে আসছে। তাই আমরা মামলা করেছি। আমরা তার ফাঁসি চাই। মেম্বর আগেও এরকম কয়েকটি ঘটনা ঘটিয়েছে।
অভিযুক্ত ইউপি সদস্য লিটন বাড়ৈর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে এলাকায় পাওয়া যায়নি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, আমি ধর্ষনের ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি। এবং মামলা নিতে ডাসার থানার ওসিকে বলে দিয়েছি।
এ ব্যাপারে ডাসার থানার ওসি মোঃ গোলাম কিবরীয়া বলেন, স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। ধর্ষিতাকে মেডিকেল চেকাপের জন্য সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছি। এবং আসামীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।


error: Content is protected !!