বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ ইং, ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ ইং

দ্রুত ও সঠিকভাবে নওপাড়ার বেরীবাধের কাজ শেষ হবে: এ কে এম এনামুল হক শামীম

দ্রুত ও সঠিকভাবে নওপাড়ার বেরীবাধের কাজ শেষ হবে: এ কে এম এনামুল হক শামীম

শরীয়তপুরের অন্যতম দূর্গম চরাঞ্চল নওপাড়া ইউনিয়নে নদীভাঙ্গন রোধ করতে নদীতে বাধের কাজ শুরু হয়ে গেছে গত ১৫ই মার্চের শুভ উদ্বোধনের মাধ্যমে। অত্র ইউনিয়নবাসীর বসবাসরত প্রায় ১৫ হাজার মানুষের স্বপ্ন ছিল এই বেরীবাঁধ নির্মাণ।
বিগত ১০০ বছরেও মানুষের কাছে যা স্বপ্নের ন্যায় ছিল আজ তা বাস্তবে রূপ করে দিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, শরীয়তপুর-০২ (নড়িয়া-সখিপুর) আসনের এমপি ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম।
গত ১৫ ই মার্চ নওপাড়া বেরীবাঁধের শুভ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে বেরীবাঁধের কাজ শুরু করেন।
নওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদ আজগর সোহেল মুন্সী জানান, আমাদের নদীভাঙ্গনরোধে বেরীবাঁধের কাজ দ্রুত গতিতে কাজ চলছে। অচীরেই বাঁধের কাজ শেষ হবে।
পর্তুগাল আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি রাফিক উল্লাহ মুন্সী বলেন, আমরা নড়িয়া সখিপুরবাসী এতোদিনে একজন সঠিক নেতা পেয়েছি যার দুচোখে শুধুই উন্নয়ন। যিনি না থাকলে আমাদের পদ্মাবিচ্ছিন্ন চরাঞ্চলের নদীভাঙ্গন রোধ করতে বেরীবাঁধ হতো না। যেমন কথা তেমনই কাজ গত ১৫ ই মার্চে বেরীবাঁধের কাজের শুরু হয়ে আজ পর্যন্ত সঠিকভাবে বাঁধের কাজ চলছে।
স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য আলহাজ্ব জাকির হোসেন মুন্সী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছানোর আশ্বাসে আজ নওপাড়া, চরআত্রা ও কাচিকাটা এই তিনটি ইউনিয়নেও সাবমেরিন কেবলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ ও ইন্টারনেট সুবিধা পাওয়া যাবে। ইতিমধ্যে বিদ্যুতের উপকেন্দ্র করার জন্য জমি দেওয়া হয়ে গেছে। নওপাড়াবাসীর বিগত কয়েকবছরের স্বপ্ন বেরীবাধ আজ বাস্তবে রূপ নিতে যাচ্ছে।
বেরীবাঁধের কার্যক্রমের সম্পর্কে সাংবাদিক মেহেদী জানতে চাইলে এ কে এম এনামুল হক শামীম বলেন- দ্রুত ও সঠিকভাবে নওপাড়ার বেরীবাঁধের কাজ শেষ হবে। আগামী বর্ষার পূর্বেই বেরীবাঁধের কাজ শেষ হবে বলে তিনি জোড়ালো ভাবে কাজের গতি বাড়াতে বলেন। প্রধানমন্ত্রীর ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেওয়ার আশ্বাস কে তিনি বাস্তবে রূপ দিতে তিনি সাবমেরিন কেবলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ পৌছে দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন।
নওপাড়া ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান শামীম বলেন আমাদের বিগত ১০০ বছরের কল্পনা আজ বাস্তবে রূপ দিচ্ছে। বেরীবাঁধের আশা প্রায়ই ছেড়ে দিয়েছিল এই পদ্মা বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চল বাসকারী নওপাড়া বাসী। কিন্তু যেমন কথা তেমনই কাজ এমনই একজন নেতাকে পেয়েছি আমরা যিনি আমাদের অসহায় অবস্থায় আশার বাঁধ বেঁধেছেন। আমাদের এই চরাঞ্চলে বেরীবাঁধ ও বিদ্যুৎ এর আশা করিনি। কিন্তু অচিরেই বেরিবাঁধের কাজ শুরু হয়ে গেছে ও সাবমেরিন কেবলের মাধ্যমে বিদ্যুতায়নের জন্য কাজ শুরু হয়ে গেছে। ধন্যবাদ জানাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে যিনি দেশের উন্নয়নের গতি দিন দিন বাড়িয়েই চলছে।


error: Content is protected !!