বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং, ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জমাদিউস-সানি, ১৪৪৩ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং

শরীয়তপুর বাঁশের বেড়া দিয়ে পৌরসভার সড়ক নির্মাণে বাঁধা

শরীয়তপুর বাঁশের বেড়া দিয়ে পৌরসভার সড়ক নির্মাণে বাঁধা

শরীয়তপুর পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড উত্তর বালুচড়া গ্রামে সড়কের মাঝখান দিয়ে বাঁশের বেড়া ও পিলার গেড়ে সরকারি রাস্তা নির্মাণে বাঁধা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, শরীয়তপুর পৌরসভার নিজস্ব অর্থায়নে উত্তর বালুচড়া লিটন সরদারের বাড়ি থেকে রশিদ সরদারের বাড়ি পর্যন্ত ৬শ ফিট দীর্ঘ ও ৮ ফিট প্রস্থ ইটের সলিং রাস্তা নির্মাণের কাজ শুরু হয়। ঠিকাদার কাজ শুরু করার পর এলাকার কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তি রাস্তা নির্মাণে বাঁধা দেন। তারা রাস্তার মাঝখান দিয়ে বাঁশের বেড়া নির্মাণ ও পিলার গেড়ে সড়ক নির্মাণে বাঁধা দেন। এতে এলাকার সর্বসাধারণের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দেয়। বাঁধা প্রদানকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় স্থানীয়রা প্রকাশ্যে কিছু বলতে পারছেন না বলে জানা গেছে।

ঠিকাদার ফরহাদ আলী বলেন, পৌরসভার অর্থায়নে উত্তর বালুচড়া গ্রামে ৬শ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৮ ফুট প্রস্থ ইটের সলিং রাস্তা নির্মাণ কাজ শুরু করি। ইঞ্জিনিয়ার রাস্তা মেপে আমাকে যেভাবে বুঝে দিয়েছেন আমি সেভাবেই কাজ করছি।

অর্ধেক পরিমাণ কাজ শেষ করার পর এলাকার প্রভাবশালী সুজাতা রানী দে, সমেদ সর্দার ও রহমান সরদার গংরা রাস্তার মাঝখান দিয়ে বাঁশের বেড়া নির্মাণ ও পিলার গেড়ে রাস্তা নির্মাণে বাঁধা প্রদান করে। আমি বিষয়টি পৌরসভা কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। তারা ব্যবস্থা নিবে বলেছেন।
এলাকার মমতাজ বেগম বলেন, এখান দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করা এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি ছিল। এখান দিয়ে রাস্তা হলে এলাকার সকল মানুষ উপকৃত হবে। কিন্তু কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি রাস্তার মাঝখান দিয়ে বাঁশের বেড়া দিয়ে রাস্তা নির্মাণে বাধা দিচ্ছে। আমরা এলাকাবাসী চাই দীর্ঘদিন পর পৌরসভা রাস্তা নির্মাণের যে উদ্যোগ নিয়েছেন সেটা যেন সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হয়।

বাঁধা প্রদানকারী এলাকার সুচিত্রা রানী দে বলেন, আমরা রাস্তা নির্মাণের জন্য দুই ফিট জায়গা দিয়েছি। এর বেশি দেওয়া সম্ভব না। তাই আমাদের জায়গায় আমরা বাঁশের বেড়া দিয়েছি।

সমেদ সরদার ও রহমান সরদার বলেন, আমাদের জায়গা দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করবে কিন্তু আমাদের সাথেই কোন আলোচনা করা হয়নি। আমাদের জায়গা দিয়ে আমরা রাস্তা নির্মাণ করতে দিবোনা। তাই আমরা আমাদের জমিতে বাঁশ ও পিলার গেড়ে দিয়েছি।
পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট পারভেজ রহমান জন বলেন, জানতে পেরেছি উত্তর বলুচড়া গ্রামে পৌরসভার অর্থায়নে সড়ক নির্মাণে এলাকার কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তি সড়কের মাঝখান দিয়ে বাঁশের বেড়া দিয়ে বাঁধা প্রদান করছেন। এ বিষয়ে সবাইকে নিয়ে বসে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।