বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ ইং, ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ ইং

ঝড়ে উড়ে যাওয়া স্কুলটির নির্মানে উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে

ঝড়ে উড়ে যাওয়া স্কুলটির নির্মানে উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে

কয়েকটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদ প্রকাশ ও ব্যারিষ্টার সায়েদুল হক সুমনের করা ফেসবুক লাইভ ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর শরীয়তপুরের সেই আলোচিত স্কুলটি দ্রুত নির্মানের জন্য আর্থিক অনুদান দিয়েছেন শরীয়তপুর-১ আসনের স্থানীয় সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন অপু ও শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের।
এর আগে শরীয়তপুরের জনপ্রিয় দৈনিক রুদ্রবার্তায় সহ কয়েকটি অনলাইনে “শরীয়তপুরে গাছতলায় পাঠদান, বৃষ্টি নামলেই ছুটি” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হলে হাইকোর্টের আইনজীবী এবং আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের নজরে আসলে তিনি স্কুলটি পরিদর্শনে আসেন। গত ২৩ এপ্রিল সকালে তিনি শরীয়তপুর সদর উপজেলার ডোমসার ইউনিয়নের চর ডোমসার বে-সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শনে এসে স্কুল চলাকালীন সময় শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে ফেসবুক ভিডিও রেকর্ডিং লাইভে আসেন। লাইভে তিনি স্কুলের সমসায়িক সমস্যার বিষয়গুলো তুলে ধরেন। তার ব্যক্তিগত ফেসবুক পেইজে ভিডিওটি শেয়ার করলে মুহুর্তের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায়।
লাইভে এসে ভিডিও বার্তায় সাইদুল ইসলাম সুমন আগামী পনেরো দিনের মধ্যে কর্তৃপক্ষ স্কুল ভবন নির্মাণ না করলে, তার বেতনের টাকা দিয়ে হলেও স্কুলের উন্নয়নের জন্য কাজ করে দিবেন বলে ঘোষণা দেন।
এরপর স্থানীয় সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন অপু ব্যারিস্টার সুমনের সাথে ফোনে যোগাযোগ করেন এবং তিনি দ্রুত বিদ্যালয়টি নির্মান করে দেবেন বলেও জানান। এ প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার স্কুলের নির্মান কাজের জন্য নগদ ১ লক্ষ টাকা অনুদান দেন ইকবাল হোসেন অপু এমপি। শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের জেলা প্রশাসেনের পক্ষ থেকে স্কুল নির্মানের জন্য ১০ বান টিন ও নগদ প্রায় ৫০ হাজার টাকা অনুদান দেন।
ব্যারিস্টার সুমন লাইভ-এ আসার আগে শরীয়তপুর সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসারের দেওয়া ৪০ হাজার টাকা দিয়ে স্কুলের নির্মান কাজ শুরু হলেও বর্তমানে টাকার পরিমান কয়েকগুণ বেড়ে গেছে।
বিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ফারজানা আক্তার নিজের অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন, সাংবাদিকরা সংবাদ প্রকাশ করার কারনে এবং ব্যারিস্টার সুমন সাহেব সরজমিনে এসে স্কুলটির সমস্যা তুলে ধরায় দ্রুত গতিতে বিদ্যালয়টির নির্মান কাজ শুরু করা সম্ভব হয়েছে। স্থানীয় এমপি, উপজেলা ও জেলা প্রশাসন আর্থিকভাবে অনুদান দিয়েছেন। তিনি বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হলেও এখন পর্যন্ত এমপিও ভুক্ত হয়নি। আশা করি এবার বিদ্যালয়টিও এমপিও ভুক্ত হবে। এটা এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের জোর দাবি।
ডোমসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান চাঁন মিয়া মাদবর বলেন, ব্যারিস্টার সুমন সাহেব এই বিদ্যালয়টি পরিদর্শনে আসার পর ইকবাল হোসেন অপু এমপি ও জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের মহোদয় দুজনে নগত দেড় লক্ষ টাকা ও ১০ বান টিন দিয়েছেন। আশা করি ভবনের নির্মান কাজ হয়ে যাবে। স্কুল ভবনটি নির্মান করতে প্রায় চার থেকে পাচঁ লাখ টাকা লাগবে বলেও জানান তিনি। তিনি আরও কিছু সমস্যার কথা তুলে ধরে বলেন, স্কুল ঘরটি ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়াতে পাঠদানের জন্য ভালো পড়ার টেবিল, ব্লাক বোর্ড নেই। সব নতুন করে বানাতে আরও প্রায় ১ লক্ষ টাকার মত লাগবে।
এছাড়া শরীয়তপুরের দুবাই প্রবাসী জসিম রাজেক ও ঢাকায় চিকিৎসা পেশায় কর্মরত ডা: আব্দুর রাজ্জাক আর্থিকভাবে সাহায্য করার আশ্বাস দেন। তারা বলেন, স্কুলের নির্মান কাজ শেষ হলে স্কুলের আসবাবপত্র ক্রয় করতে যত টাকা লাগবে স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও স্থানীয় জন প্রতিনিধির সাথে যোগাযোগ করে অনুদান দিবেন বলে তারা জানান।
শরীয়তপুর সদর উপজেলার ডোমসার ইউনিয়নের চর ডোমসার, ভাসকদ্দি ও বেদেপল্লী গ্রামে স্কুল না থাকায় গ্রামগুলোর মানুষের কথা চিন্তা করে ১৯৭০ সালে স্থানীয় সিরাজুল হক মোল্যা বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। পরে ২০০৩ সাল থেকে বিদ্যালয়টিতে নিয়মিতভাবে পাঠদান শুরু হয়। গত ৬ এপ্রিল সন্ধ্যায় কালবৈশাখী ঝড়ে বিদ্যালয়ের টিনের ঘরটি উড়ে যায়। সেই থেকে খোলা আকাশের নিচে ক্লাস করতে হয় শিশুদের। প্রতি বছরই স্কুলঘরটি ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। বিদ্যালয়ে বর্তমান শিক্ষার্থী ১৫০ জন। ভবন না থাকায় প্রতি বছরেই শিক্ষার্থী কমছে। বিদ্যালয় শিক্ষক আছেন মাত্র তিনজন।


error: Content is protected !!