শনিবার, ২৬শে নভেম্বর, ২০২২ ইং, ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২রা জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
শনিবার, ২৬শে নভেম্বর, ২০২২ ইং

শরীয়তপুর মা ইলিশ রক্ষায় ৩০২টি অভিযান

শরীয়তপুর মা ইলিশ রক্ষায় ৩০২টি অভিযান

চলতি মাসের ৭ তারিখ থেকে মা ইলিশ রক্ষায় জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও কোস্ট গার্ডের সহায়তায় জেলা মৎস্য অফিস অভিযান পরিচালনা করে আসছে। আগামী ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। জেলার ৬টি উপজেলার সদর ও ডামুড্যা উপজেলা ব্যাতিত জাজিরা, নড়িয়া, ভেদরগঞ্জ ও গোসাইরহাট উপজেলার ৭০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে পদ্মা ও মেঘনা নদীতে এ অভিযান চলছে। ইলিশ শিকারে স্পীডবোট দ্রুত গতির ট্রলার ব্যবহার করছে জেলেরা। দ্রুতগতির নৌযান, জনবল সংকট ও নিরাপত্তার অভাবে আশানুরূপ সফলাতর মুখ দেখছে না মৎস্য বিভাগ।
জেলা মৎস্য অফিস সূত্র জানায়, আজ পর্যন্ত জেলা মৎস্য অফিস ৩০২ টি অভিযান পরিচালনা করেছে। অভিযানে সহ¯্রাধিক জেলেসহ জাল ও মাছ আটক হয়েছে। ১৬৯ টি মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ৯০৮ জন জেলের বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে তারা। ৭৫৬ জন জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়ে হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ১৮২ জন জেলেকে বিভিন্ন অংকে অর্থদন্ড দেয়া হয়েছে। অভিযান কালে ৬২ লাখ ৯৯ হাজার ৮০০ মিটার জাল ও ১৩ হাজার ৫৮৯ কেজি ইলিশ মাছ উদ্ধার করেছে। আটককৃত জাল ধ্বংসসহ মা ইলিশ বিভিন্ন এতিম খানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। জরিমানা আদায় হয়েছে ৮ লাখ ৬১ হাজার ৫০০ টাকা। স্পীডবোট দিয়ে মাছ শিকারের সময় নিজেদের ট্রলার ও স্পীডবোটের সংঘর্ষে অনেক স্পীডবোট ও ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটেছে। এ পর্যন্ত দুই জেলের মরদেহ উদ্ধার হয়েছে।
জেলা মৎস্য অফিসার বিশ্বজিৎ বৈরাগী বলেন, রাতদিন করে অভিযন পরিচালনা করা হচ্ছে। জেলেরা দ্রুতগতির স্পীডবোট ও ট্রলার ব্যবহার করে মা ইলিশ শিকার করছে। আমাদের দ্রুতগামী নৌযান না থাকায় জেলেদের আটক করা যাচ্ছে না। জনবল সংকট ও নিরাপত্তা আরও বেশী জোরদার করা গেলে অভিযান সফল করা সম্ভব হতো। আগামী ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে।


error: Content is protected !!