শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ ইং, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ ইং

শরীয়তপুরে অজ্ঞাত যুবকের চোখ ও হাত পা বাঁধা লাশের পরিচয় মিলেছে

শরীয়তপুরে অজ্ঞাত যুবকের চোখ ও হাত পা বাঁধা লাশের পরিচয় মিলেছে

শরীয়তপুর সদর উপজেলার কাশিপুর হিন্দু পাড়া নামক স্থানে শরীয়তপুর-মাদারীপুর মহাসড়কের পাশে চোখ ও হাত পা, মুখ বেধে হত্যা করে মঙ্গলবার বিকেলে ফেলে যাওয়া অজ্ঞাত যুবকের লাশের পরিচয় মিলেছে। তার বাড়ি মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলায়। নিহত ব্যক্তি একজন ভ্যান চালক ছিলেন। ময়না তদন্ত শেষে বুধবার পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার পালং মডেল থানায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।
পালং মডেল থানা ও নিহতের পারিবারিক সূত্র জানায়, মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার ভদ্রাসন নুরু মাষ্টারের কান্দি গ্রামের মৃত আইয়ুব আলী বেপারীর ছেলে মনাই বেপারী (২৬) গত মঙ্গলবার সকালে বাড়ি থেকে অটোবাইক নিয়ে বের হয়। সে শিবচর থেকে কয়েকজন যাত্রি নিয়ে শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার কাজিরহাট নামক স্থানে এসে তাদের নামিয়ে দেয়। এরপর কাজিরহাট থেকে একজন যাত্রি রিজার্ভ নিয়ে একই উপজেলার জয়নগর যাত্রা করে। এরপর তার আর কোন সন্ধান নেই। রাতে সে আর বাড়ি ফিরেনি। অনেক খোঁজাখুঁজি করে পরিবার তার কোন সন্ধান মিলাতে পারেনি। এদিকে দুস্কৃতিকারীরা তার অটোবাইকটি ছিনিয়ে নিয়ে তাকে পিছমোড়া হাত, পা , মুখ ও চোখ বেধে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে ঐ দিন দুপুর অনুমান দেড়টায় একটি সাদা মাইক্রো বাসে করে শরীয়তপুর সদর উপজেলার কাশিপুর হিন্দুপাড়া নামক স্থানে শরীয়তপুর-মাদারীপুর মহাসড়কের পাশে ফেলে দ্রুত মাদারীপুরের দিকে পালিয়ে যায়। পাশে দিয়ে যাওয়ার সময় এক ভ্যান চালক লাশ ফেলে যেতে দেখতে পায়। ভ্যান চালক আংগারিয়া বাজারে গিয়ে লোকজনের কাছে জানায়। স্থানীয়রা পুলিশসহ ঘটনাস্থলে যায়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে। এ ঘটনা প্রত্যক্ষদর্শীদের তোলা ছবি সামাজিক যোগাযোগে ভাইরাল হয়ে যায় ও পুলিশের মেসেজ সারা দেশে পৌছে। পরদিন বুধবার সকালে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তার ভাইয়ের লাশ দেখতে পেয়ে নিহতের বড়ভাই মাতালেব বেপারী শরীয়তপুরের পালং মডেল থানায় এসে লাশ সনাক্ত করে। বুধবার রাতে পুলিশ পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করে। নিহতের বড় ভাই মোতালেব বেপারী বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের আসামী করে বৃহস্পতিবার পালং মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করার প্রক্রিয়া চলছে।
নিহতের বড়ভাই মোতালেব বেপারী বলেন, আমার ভাই মনাই বেপারী মঙ্গলবার সকালে বাড়ি থেকে অটোবাইক নিয়ে বের হয়ে কয়েকজন যাত্রি নিয়ে জাজিরার কাজিরহাটে আসে। সেখান থেকে একজন যাত্রি রিজার্ভ নিয়ে জয়নগর রওয়ানা করে। এরপর তার কোন সন্ধান মিলেনি। পরদিন ফেইসবুকে ভাইয়ের লাশ দেখে পালং মডেল থানায় এসে লাশ সনাক্ত করি। আমি আমার ভাইয়ের হত্যাকারীদের বিচার চাই।
পালং মডেল থানার ওসি মোঃ আসলাম উদ্দিন বলেন, গত মঙ্গলবার শরীয়তপুর-মাদারীপুর মহাসড়কের পাশে সদর উপজেলার কাশিপুর হিন্দুপাড়া নামক স্থান থেকে উদ্ধার করা অজ্ঞাত যুবকের লাশের সন্ধান মিলেছে। লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় পালং মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করার প্রক্রিয়া চলছে।


error: Content is protected !!