মঙ্গলবার, ২০শে এপ্রিল, ২০২১ ইং, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৮ই রমজান, ১৪৪২ হিজরী
মঙ্গলবার, ২০শে এপ্রিল, ২০২১ ইং

ডামুড্যায় ট্রলার থেকে নদীতে পড়ে নিখোঁজ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার

ডামুড্যায় ট্রলার থেকে নদীতে পড়ে নিখোঁজ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার

শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যায় ব্লোক বোঝাই ট্রলার ব্রিজের পিলারের সাথে ধাক্কা লেগে জয়ন্তী নদীতে পড়ে এক শ্রমিক নিখোঁজের দু’দিন পর লাশ উদ্ধার করেছে ডামুড্যা থানা পুলিশ। নিহতের নাম মাসুদুল রহমান (৩৫)।

শুক্রবার (০২ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে জয়ন্তী নদীতে ঠেঙ্গার বাড়ির সামনে থেকে ওই শ্রমিকের মৃতদেহ উদ্ধার করে ডামুড্যা থানা পুলিশ।

গত ৩১ মার্চ বুধবার বিকেল পৌনে ৫ টার দিকে জয়ন্তী নদীর ধানহাটা এই দুর্ঘটনাটি ঘটে।

এর আগে বুধবার ও বৃহস্পতিবার ডামুড্যা ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকারী ডুবুরি দল না থাকায় বরিশাল থেকে ডুবুরি দল এসে তাকে অনেক খোঁজাখুঁজির পরেও খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়।

নিখোঁজ মাসুদুল রহমান (৩৫) নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার নাওতোরা ৭ নং খালিশা চাপানী গ্রামের আহমেদ পাগলীর ছেলে। তার তিন ছেলে।

ডামুড্যা থানার ওসি তদন্ত এমারাত হোসেন জানান, দু’দিন যাবৎ ডুবুরি দল খোঁজাখুঁজি শুরু করে। দু’দিন পর আজ সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে ঘটনাস্থলের ১ কিলোর মধ্যে ঠেঙ্গার বাড়ির সামনে হঠাৎ লাশটি ভেসে উঠার পর নিখোঁজ শ্রমিকের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

মরদেহ পরিবারের আবেদনের মাধ্যমে ময়নাতদন্ত ছাড়াই, তার পরিবারে পৌঁছে দেয়া হয়।
প্রসঙ্গত, ডামুড্যা পৌর সভার শহর রক্ষা বাঁধের কাজ চলছে। এই নদীর তীরের বাঁধে ব্লোক দেওয়া হচ্ছে। দূরে তৈরি হওয়ার কারণে ট্রলারে করে ব্লোক আনা হয়। বুধবার ট্রলারটি ধানহাটা নামক স্থানে আসলে অপর পাশ থেকে আসা ট্রলার কে সাইড দিতে গিয়ে ব্রিজের পিলারের সাথে ধাক্কা লাগে। ধাক্কার সাথে সাথে ট্রলারের সামনে থাকা মাসুদুল নদীতে পড়ে যায়। ট্রলারে থাকা শ্রমিকরা তাকে খোঁজার জন্য নদীতে নেমে পড়ে। কিন্তু তাকে পাওয়া যায়নি। আজ তার মরাদেহ জয়ন্তী নদী থানার সামনে ভেসে উঠে।