সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ ইং, ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২২শে শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরী
সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ ইং

পুলিশ সুপারের খাদ্য সহায়তা ও ঈদ উপহার নিয়ে হাজির হলেন ডামুড্যার ওসি

পুলিশ সুপারের খাদ্য সহায়তা ও ঈদ উপহার নিয়ে হাজির হলেন ডামুড্যার ওসি

তিন দশক পরে পুলিশের দেয়া উপহারে আপন ঠিকানা হলো হতদরিদ্র আব্দুল গনি সরদারের । পুলিশ সুপারের পক্ষ থেকে খাদ্য সামগ্রী ও ঈদ উপহার নিয়ে উক্ত ঠিকানায় হাজির হলেন ওসি।

১৮ এপ্রিল ২০২২ ডামুড্যা থানায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে বাংলাদেশ পুলিশের পক্ষ থেকে হতদরিদ্র হিসেবে গৃহ প্রাপ্ত মোঃ আব্দুল গনি সরদার (৬৫)পিতা মৃত সাহাব আলী সরদার সাং -সুতলকাঠি থানা – ডামুড্যা, জেলা – শরীয়তপুরকে শরীয়তপুর জেলার পুলিশ সুপার জনাব এস.এম. আশরাফুজ্জামান স্যারের পক্ষ থেকে খাদ্যসামগ্রী ও ঈদ উপহার নতুন জামাকাপড় তুলে দেন ডামুড্যা থানার অফিসার ইনচার্জ শরীফ আহমেদ ।

সোমবার বিকাল ৪.৩০ ঘটিকায় পুলিশ সুপার শরীয়তপুরের পক্ষ থেকে ডামুড্যা থানার অফিসার ইনচার্জ শরীফ আহমেদ, এসআই- অমল কুমার রায় এবং ফোর্সগণ হতদরিদ্র মো: আব্দুল গনি সরদারের বাংলাদেশ পুলিশের সদ্য নির্মাণ করে দেয়া বাড়ীতে খাদ্যসামগ্রী ও ঈদ উপহার নতুন জামা কাপড় নিয়ে হাজির হলে সেখানে এক আবেগঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়। গনি সরদারের চোখে মুখে ফুটে ওঠে আনন্দের ফাল্গুনধারা।

খুশিতে উচ্ছ্বসিত হয়ে ব্যাপক প্রশংসা ও দোয়া করেন পুলিশ সুপার জনাব এস.এম আশরাফুজ্জামান স্যার ও ওসি শরীফ আহমেদ এর জন্য। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন কনেশ্বর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জনাব আনিছুর রহমান বাচ্চু, স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুল মজিদ সরদার, সোহরাব হোসেন।ডামুড্যার সুতলকাঠি গ্রামের আব্দুল গনি সরদার(৬৫) একজন বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী মানুষ। বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ও নিতান্তই হতদরিদ্র হওয়ার কারণে বিবাহের মাত্র কয়েক মাসের মধ্যে ই তার স্ত্রী তাকে ফেলে চলে যায়।

সেই থেকে আজ প্রায় তিন দশকের অধিক সময় ধরে একাকী জীবন ধারন করে চলছেন। ভুমিহীন ও গৃহহীন এই মানুষটির জীবনের শেষ সময়ে এসে বাংলাদেশ পুলিশের পক্ষ থেকে সুন্দর এই পাকা গৃহ পেয়ে আনন্দিত হয়েছেন। এলাকার স্থানীয় নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, সাধারণ মানুষ পুলিশ কে ধন্যবাদ জানান ও প্রশংসা করেন হতদরিদ্র গনি সরদারের জন্য জমিসহ গৃহ নির্মাণ করে দেওয়ায় এবং রমজানের সময়ে পুলিশ সুপার এসএম আশরাফুজ্জামান মহোদয়ের পক্ষ থেকে খাদ্য সামগ্রী ও ঈদ উপহার হিসেবে নতুন জামা কাপড় প্রদান করায়। ঘর পাওয়া আঃ গনি সরদার বলেন, এতদিন মাথা গোঁজার ঠাঁই ছিল না।

পুলিশের পক্ষ থেকে আমাকে বসবাসের জন্য সুন্দর একটি ঘর উপহার দিছে। এতে আমি অনেক খুশি। যে পুলিশ বাহিনী আমাকে ঘর উপহার দিয়ে মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিছে তাদের জন্য সব সময় দোয়া করি। কনেশ্বর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান বাচ্ছু মাদবর বলেন, মুজিব শতবর্ষে বাংলাদেশে একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ নির্দেশনায় পুলিশের তত্ত্বাবধানে ডামুড্যা থানায় গৃহহীন ও হতদরিদ্র ১টি পরিবারকে গৃহ নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগসহ বসবাসের উপযোগী সব ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে।আঃ গনি সরদার একজন অসহায় বুদ্ধি প্রতিবন্ধী,সেকোন কাজ করতে পারে না, স্থায়ীভাবে থাকার জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে একটি ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।

আমি কনেশ্বর ইউনিয়ন বাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশ পুলিশকে ধন্যবাদ জানাই। ধন্যবাদ জানাই শরীয়তপুর জেলার পুলিশ সুপার এসএম আশরাফিজ্জামান স্যার ও ডামুড্যা থানার ওসি সহ সবাইকে।

ডামুড্যা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শরীফ আহমেদ বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাংলাদেশ পুলিশের অর্থায়নে ডামুড্যা উপজেলার কনেশ্বর ইউনিয়নের সুতলকাঠি গ্রামের হতদরিদ্র আঃ গনি মিয়া কে একটি ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হয় ।

আঃ গনির কাছে চাবি হস্তান্তর করা হয়েছে। গৃহহীন ঘরটি পেয়ে অত্যন্ত খুশি। টিনসেড দালানগুলো দেখতে দৃষ্টিনন্দন। মুজিববর্ষ উপলক্ষে অসহায় গৃহহীন মানুষদের ঘর উপহার দিতে পেরে ডামুড্যা পুলিশ নিজেদের গর্বিত মনে করছে। তিনি আরো বলেন,মুজিব বর্ষে পুলিশের পক্ষ থেকে এ উপজেলায় একজন অসহায় মানুষের জন্য মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিতে পেরছি এটাই আমাদের বাহিনীর সার্থকতা। আজ সোমবার শরীয়তপুর জেলার পুলিশ সুপার এসএম আশরাফুজ্জামান স্যার আঃ গনি সরদার এর খোজখবর নিয়েছেন, স্যারের পক্ষ থেকে আজকে গনি সরদারের জন্য খাদ্য সামগ্রী ও ঈদ উপহার দিয়ে গেলাম। আমরা আঃ গনি সরদার কে খাদ্য সামগ্রী ও ঈদ সামগ্রী দিতে পেরে আমরা আনন্দিত।