Friday 21st June 2024
Friday 21st June 2024

Notice: Undefined index: top-menu-onoff-sm in /home/hongkarc/rudrabarta.net/wp-content/themes/newsuncode/lib/part/top-part.php on line 67

শরীয়তপুরের সখিপুরে আগুনে দগ্ধ হয়ে শিশু দু’ভাইবোনের মৃত্যু

শরীয়তপুরের সখিপুরে আগুনে দগ্ধ হয়ে শিশু দু’ভাইবোনের মৃত্যু

শরীয়তপুরের সখিপুরে আগুনে দগ্ধ হয়ে শিশু দু’ভাইবোনের মৃত্যু হয়েছে। এঘটনায় একজন আহত হয়েছে। আজ মঙ্গলবার (৪ এপ্রিল) ভোর সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকা মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু বরণ করে তারা।

৩এপ্রিল সোমবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে সখিপুর থানার আশ্রাফ বেপারীকান্দি এলাকায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহতরা আশ্রাফ বেপারীকান্দি এলাকার মো. মনসুর ঢালীর মেয়ে সামিয়া আক্তার (১০) ও ছেলে ুআরাফাত ঢালী (৮)। আর আহত বড় মেয়ে মীম ইসলাম (১২)। মীম গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে ভর্তি আছে। তার অবস্থা আশংকাজনক। তারা ৫১নং সখিপুর জেএম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। পরিবার ও স্থানীয় সূত্র জানায়, জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার আশ্রাফ বেপারীকান্দি এলাকায় সোমবার রাত ৯টার দিকে খাবার খেয়ে একটি দোচালা টিনের ঘরে সামিয়া, আরাফাত ও মীম ঘুমিয়ে পরে। রাত ১০টার দিকে হঠাৎ ঘরে আগুন লাগলে পুরো ঘরে আগুন ছড়িয়ে পরে। তখন স্থানীয়রা এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে এবং সামিয়া, আরাফাত ও মীমকে উদ্ধার করে। ততক্ষণে সামিয়া ও আরাফাতের শরীর ৯৫ ভাগ দগ্ধ হয়। আর মীমের শরীর ৫০ ভাগ দগ্ধ হয়। পরে স্থানীয় ও স্বজনরা তাদের উদ্ধার করে সখিপুর একটি ক্লিনিকে নিয়ে যায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের ঢাকা মেডিকেলে প্রেরণ করেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার ভোর ৪টার দিকে সামিয়া ও আরাফাতের মৃত্যু হয়। আর মীম শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে ভর্তি আছে। তার অবস্থা আশংকাজনক। শোকে মাতম পরিবার ও আত্মীয় স্বজনরা। দুপুরে সামিয়া ও আরাফাতের মরদেহ গ্রামে এনে জানাজা শেষে পারবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। স্থানীয়রা আগুনের বিষয়টি ফায়ার সার্ভিসকে জানালে খবর পেয়ে ভেদরগঞ্জ উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণের একঘন্টা পর ঘটনাস্থলে আছে। বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের কারনে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে বলে ধারণা করছে ফায়ার সার্ভিস।

ভেদরগঞ্জের ইউএনও, ওসি ও স্থানীয় চেয়ারম্যান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আর্থিকভাবে সহায়তা করেছেন। ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, আমরা নিহত পরিবারকে উপজেলা পরিষদ থেকে ১০ হাজার টাকা দিয়েছি। আর উপজেলা প্রশাসন থেকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে সহায়তা করবো। পরিবারের ক্ষতি অপূরনীয়। আমরা নিহত পরিবারের প্রতি শোক ও সমবেদনা জানাই।