বুধবার, ৩রা জুন, ২০২০ ইং, ২০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ই শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী
বুধবার, ৩রা জুন, ২০২০ ইং

জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থা শরীয়তপুর জেলা শাখার উদ্যোগে শরীয়তপুরে সাদাছড়ি দিবস পালিত

জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থা শরীয়তপুর জেলা শাখার উদ্যোগে শরীয়তপুরে সাদাছড়ি দিবস পালিত

“জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থা” শরীয়তপুর জেলা শাখার উদ্যোগে ২ নভেম্বর শনিবার শরীয়তপুর পৌরসভা অডিটোরিয়ামে বেলা সাড়ে ১১ টায় আলোচনা সভা ও পুরষ্কার বিতরণীর মাধ্যমে সাদাছড়ি দিবস পালিত হয়েছে। সাদাছড়ি বহনকারী দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে স্বনির্ভর ও আত্মবিশ্বাসের সাথে নিরাপত্তার প্রতীক হিসেবে সাদাছড়ি ব্যবহারে সচেতনতা বাড়ানোই এই দিবসের লক্ষ্য। দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের নিরাপদে চলাফেরা নিশ্চিত করতে ১৯৬১ সাল থেকে প্রতিবছর ১৫ই অক্টোবর দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় “জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থা” শরীয়তপুরের ১০০ জন দৃষ্টি প্রতিবন্ধীকে পথ চলার সাদাছড়ি বহনকারী প্রতীক বিতরণ ও “জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থা” কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে শরীয়তপুর জেলা শাখার জন্য ১০ হাজার টাকা অনুদান বরাদ্দ ঘোষনা করা হয়।
আলোচনা সভা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, “জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থা” কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মোঃ আইয়ুব আলী হাওলাদার।
“জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থা” শরীয়তপুর জেলা শাখার সভাপতি আ: মালেক তালুকদার-এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, “জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থা” কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম ও নারায়ণগঞ্জ শাখার সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম।
এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন, “জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থা” মাদারীপুর জেলা শাখার সভাপতি ইয়াকুব আলী, চাদঁপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম, শরীয়তপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আবু আলিম মাদবরসহ সাংবাদিক ও বিভিন্ন জেলা শাখার দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীগণ।
দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী নেতৃবৃন্দ বলেন, দৃষ্টি প্রতিবন্ধীরা দেশের বোঝা নয়, বরং সমাজ গঠনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে সক্ষম। কিন্তু আমাদের দেশের কিছু উচ্চ শ্রেণির কিছু মানুষ দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের সঠিক মূল্যায়ন করতে অক্ষম। আজকে আমাদের এ অনুষ্ঠানে ডিসি, এসপি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থাকার কথা ছিল। কিন্তু তারা না আসার কারনে আমরাই প্রধান অতিথি ও আমরাই বিশেষ অতিথি এবং আমরাই দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করেছি। আমরা যে তাদের ছাড়া কিছু করতে পারি, এ অনুষ্ঠান তার প্রমাণ। তারা আক্ষেপের সাথে আরও বলেন, তারা আমাদেরকে ও আমাদের কাজকে বোঝা মনে করলেও, আমাদের আল্লাহ আছে এবং সাংবাদিক ভাইরা আছে, তারা লিখনীর মাধ্যমে অবশ্যই আমাদের বার্তা সব জায়গায় ছড়িয়ে দিবেন।