বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ ইং, ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৩ই মুহাররম, ১৪৪৪ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ ইং

শরীয়তপুরে গণপ্রকৌশল দিবস পালিত ও আইডিইবি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

শরীয়তপুরে গণপ্রকৌশল দিবস পালিত ও আইডিইবি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

 বৃহস্পতিবার সকাল দশটায় সারাদেশের ন্যয় শরীয়তপুরে ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইডিইবি’র) আয়োজনে গণপ্রকৌশল দিবস-২০১৮ পালিত ও আইডিইবি’র ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য র‌্যালী অনুষ্ঠিত হয়। র‌্যালী উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, শরীয়তপুর জেলার জেলা প্রশাসক কাজী তাহের। এসময় আইডিইবি’র শরীয়তপুর জেলার সভাপতি এ এফ এম তৈয়্যবুর রহমানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী এ কে এম বাদশা মিয়া; গণপূর্ত প্রকৌশলী মো: আরিফুল ইসলাম; শরীয়তপুর কারিগরি প্রশিক্ষণকেন্দ্রের প্রশিক্ষক স ম জাহাঙ্গীর আখতার; আইডিইবি’র শরীয়তপুর জেলার সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম; আইডিইবি’র শরীয়তপুর জেলার সাংগাঠনিক সম্পাদক এস এম শফিকুল ইসলাম স্বপন; আইডিইবি’র শরীয়তপুর সদর উপজেলা সভাপতি মো: শাহাবুদ্দিন খান।
এছাড়া র‌্যালীতে আইডিইবি’র, এলজিইডির, গণপূর্তের ও জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারী, শরীয়তপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ছাত্রসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ব্যক্তিবর্গ প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।
র‌্যালী উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কাজী আবু তাহের বলেন, আমাদের চারপাশের যা কিছু নির্মিত হয়েছে তার সব কিছুতেই প্রকৌশলীদের ছোয়া আছে। যে কোন বিষয়ে পরিকল্পনা পর্যায়েও প্রকৌশলীদের অবদান থাকে। ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিভলেশনের চতুর্থ পর্যায়ে আছে সারাবিশ্ব। আমাদের চারপাশের যা কিছু নির্মিত হচ্ছে তার কোনোটি প্রকৌশলী ছাড়া সম্ভব নয়। প্রকৌশলীদের উদ্দেশ্য করে কাজী আবু তাহের আরও বলেন, প্রকৌশলীরা যতবেশি নিবেদিত প্রাণ হবে, যতবেশি আন্তরিক হবে ততবেশি সারাবিশ্ব এগিয়ে যাবে; জনগণের জন্য স্বাচ্ছন্দবোধ বয়ে আনবে। অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও স্বাচ্ছন্দের জন্যই এই চতুর্থ শিল্পবিপ্লব। অর্থনৈতিক উন্নয়নকে যদি টেকসই করতে হয়, তাহলে প্রকৌশলীদের যুগোপযোগী জ্ঞানসম্পন্ন হতে হবে। আইডিইবি’র মাধ্যমে যে প্রকৌশলীরা কাজ করছেন, তারা সরাসরি মাঠ পর্যায়ে প্রকৌশলী জ্ঞান দিয়ে কাজ করে থাকেন। এজন্যই তাদের ভূমিকা অনেক বেশি। আপনারা বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য নিজেদের উৎসর্গ করবেন, নিবেদিত প্রাণ হবেন। বাংলাদেশে যে উন্নয়নের জোয়ার এসেছে, এই উন্নয়নের অভিযাত্রায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিশন ২০২১ ঘোষনা করেছেন। যাতে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিগনিত হবে এবং ২০৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশের রূপ লাভ করবে। এ উন্নয়নের চিত্রে সবচেয়ে যাদের ভূমিকা বেশি, তারাই হলেন প্রকৌশলী।
র‌্যালীর উদ্বোধনী বক্তব্য শেষে র‌্যালীটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে বের হয়ে প্রধান সড়ক অতিক্রম করে আইডিইবি’র কার্যালয়ে এসে সমাপ্ত হয়।


error: Content is protected !!