বৃহস্পতিবার, ২রা জুলাই, ২০২০ ইং, ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ই জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২রা জুলাই, ২০২০ ইং

নড়িয়ায় একদিন পর বৃহস্পতিবার ঈদ পালন

নড়িয়ায় একদিন পর বৃহস্পতিবার ঈদ পালন
নড়িয়ায় একদিন পর বৃহস্পতিবার ঈদ পালন

শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার পাচক গ্রামে বাইতুল মুনির জামে মসজিদের ইমাম আব্দুল জলিল হাওলাদার তার অনুসারীদের নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার (৬ জুন) ঈদ পালন করেছেন। সকাল ৯টায় মসজিদের আব্দুল জলিল হাওলাদার ঈদের নামাজে ইমামতি করেন। এতে প্রায় ৬০ থেকে ৭০ জন লোক নামাজে অংশ গ্রহণ করেন।

মসজিদের ইমাম আব্দুল জলিল হাওলাদার

এ নিয়ে এলাকার মানুষের মধ্যে মিশ্র পতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। অনেকে মনে করছেন, মাওলানা আব্দুল জলিল বৃহস্পতিবার ঈদ পালন করে রাষ্ট্রবিরোধী কাজ করেছেন। এতে সমাজে বিশৃঙ্খলা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
এদিকে আব্দুল জলিল হাওলাদারের অনুসারীদের দাবি, যেহেতু তারা চাঁদ দেখতে পাননি তাই তারা ত্রিশটি রোজা পূর্ন করে বৃহস্পতিবার ঈদ পালন করেছে।
এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য আমির হোসেন শিকদার বলেন, গ্রামের সবাই সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী সারাদেশের ন্যায় বুধবার আমরা ঈদ পালন করেছি। কিন্তু জলিল হুজুর আজকে কি হিসেবে তার অনুসারীদের নিয়ে ঈদ পালন করছে তা বুঝতে পারছিনা। এটা আমাদের কাছে দৃষ্টিকটু মনে হয়েছে। এছাড়া সরকারের ঘোষণা অমান্য করে রাষ্ট্রবিরোধী কাজ করেছে। এতে সমাজে শান্তি শৃঙ্খলা নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এ ব্যাপারে ভোজেশ^র ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলী আহম্মদ শিকদার বলেন, আজকে ঈদ পালন করে জলিল হুজুর বড় অন্যায় কাজ করেছে। এ রকম কাজ আমরা আগে কখনো দেখিনি। রাষ্ট্রের ঘোষণা অমান্য করে জলিল হুজুর কি উদ্যেশ্যে ঈদ পালন করেছে তা আমি বুঝতে পারছিনা। আমার মনে হয়, সরকারকে বিব্রত করতে জলিল হুজুর এই কাজ করেছে।

এ ব্যাপারে জলিল হুজুর বলেন, সন্ধ্যায় এক ঘন্টা নতুন চাঁদ স্থায়ী হয়। সে ক্ষেত্রে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি প্রথমে রাত ৯টার দিকে ঘোষণা দিয়েছে চাঁদ দেখা যায়নি, বৃহস্পতিবার ঈদ হবে। পরে আবার রাত ১১ টায় ঘোষণা দিয়েছে চাঁদ দেখা গেছে বুধবার ঈদ। রাত ১১টায় তো চাঁদ দেখা যাওয়ার কথা না। তাই আমরা ত্রিশটি রোজা পূর্ন করে বৃহস্পতিবার ঈদ পালন করছি। আমরা সরকারের বিরুদ্ধে কিছু করছিনা।