মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ ইং, ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৫ই জিলহজ্জ, ১৪৪৩ হিজরী
মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ ইং

উগ্রবাদ প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধি ও অন্যান্য অংশীজনের ভূমিকা বিষয়ক মতবিনিময় সভা

উগ্রবাদ প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধি ও অন্যান্য অংশীজনের ভূমিকা বিষয়ক মতবিনিময় সভা

“সোনার বাংলার শপথ নিন, উগ্রবাদকে বিদায় দিন” এ শ্লোগাণকে সামনে রেখে শরীয়তপুরে “উগ্রবাদ প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধি ও অন্যান্য অংশীজনের ভূমিকা” বিষয়ক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। শনিবার ২১ মে সকাল ১০টা থেকে বাংলাদেশ পুলিশের সন্ত্রাস দমন ও আন্তর্জাতিক প্রতিরোধ কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প কাউন্টার টেররিজম এন্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ডিএমপি ঢাকার আয়োজনে এবং শরীয়তপুর জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন-এর সার্বিক সহযোগিতায় এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদান করেন, মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেছেন, ইঞ্জিনিয়ার সেকশনের সর্বোচ্চ মেটারিয়াল দিয়ে পদ্মাসেতু নির্মাণ করা হয়েছে। তার উদ্বোধন আগামী জুনমাসের শেষের দিকে করবেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আল্লাহ্ তায়ালার প্রাকৃতিক দূর্যোগ ব্যতীত পদ্মাসেতুর ক্ষতি কেউ করতে পারবে না। তিনি বলেন, উগ্রবাদ ও টেররিজম প্রতিরোধে নিজ অধিনস্থদের অধিকার আদায় করতে হবে। অধিকার আদায় না করলে আল্লাহর নিকট হিসাব দিতে হবে। তিনি আরও বলেন, রাশিয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধে দেশে আন্তর্জাতিক দূর্যোগ দমনে আমাদের একমাসের খাদ্য দিয়ে দুইমাস চলতে হবে। পরে তিনি খন্দকের যুদ্ধে উদাহরণ তুলে ধরেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, শরীয়তপুরের কৃতিসন্তান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিষয়ক সিনিয়র সচিব মোঃ আখতার হোসেন। তিনি বলেন, উগ্রবাদ ও টেররিজম প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধিদের বিশেষ ভূমিকা পালন করতে হবে। জনসাধারণকে সচেতন করার লক্ষ্যে জনপ্রতিনিধিদের ভূমিকার বিকল্প নেই।

বাংলাদেশ ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম(বার)। তিনি বলেন, উগ্রবাদ একটি বিজাতীয় সংস্কৃতি। এ সংস্কৃতি বার বার আমাদের দেশকে গ্রাস করার চেষ্টা করেছে। আমরা আইনী প্রক্রিয়ায় তা কঠোর হস্থে দমন করেছি। উগ্রবাদ ও টেররিজম যাতে এদেশে মাথাচারা দিয়ে উঠতে না পারে, সেজন্যই “উগ্রবাদ প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধি ও অন্যান্য অংশীজনের ভূমিকা” বিষয়ক মতবিনিময় সভার আয়োজন।

শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক মো: পারভেজ হাসান-এর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন, র‌্যাব ফোর্সেস মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন, ঢাকা বিভাগের (ভারপ্রাপ্ত) কমিশনার মো: হেলাল মাহমুদ শরীফ, বাংলাদেশ পুলিশ ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান বিপিএম, পিপিএম (বার), শরীয়তপুর পুলিশ সুপার এস. এম. আশরাফুজ্জামান এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ডিএমপি ঢাকা সিটিটিসি অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো: আসাদুজ্জামান বিপিএম (বার)।

এছাড়া অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার, জাজিরা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোবারক আলী সিকদার, নড়িয়া সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক মাকসুদা বেগম, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি ও স্থানীয় দৈনিক রুদ্রবার্তা পত্রিকার সম্পাদক শহীদুল ইসলাম পাইলট এবং যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক আব্দুস সামাদ মাষ্টার।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিভিন্ন দপ্তরের সচিব, বিভিন্ন পুলিশ কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসন কর্মকর্তা, জেলা, উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধি, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, সাংবাদিক ও সুধিবৃন্দ প্রমূখ।


error: Content is protected !!