মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ই জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং

শরীয়তপুর প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের উদ্যোগে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালিত

শরীয়তপুর প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের উদ্যোগে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালিত

জলাতঙ্ক: মৃত্যু আর নয়, সবার সাথে সমন্বয়, এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারা বিশ্বের ন্যায় শরীয়তপুরে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস ২০২২ পালিত হয়েছে। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ বুধবার সকাল ১১ টার দিকে শরীয়তপুর জেলা প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের উদ্যোগে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালনে র‌্যালিতে অংশগ্রহণ করেন শরীয়তপুর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার সুবোধ কুমার দাস, ডাক্তার মোঃ হাবিবুর রহমান, উপ-পরিচালক কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্র শরীয়তপুর, ডাক্তার তরুণ কুমার রায়, উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা শরীয়তপুর।

র‌্যালিতে আরও অংশগ্রহণ করেন জেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ের কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং জনসাধারণ। র‌্যালি শেষে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস উপলক্ষে জেলা অফিস কার্যালয়ে এক আলোচনা সভার অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস উপলক্ষে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার সুবোধ কুমার দাস, তিনি তার বক্তব্যে বলেন এই বছরের বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবসের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হলো ওয়ান হেলথ, নো ডেথ সকলের সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে এই রোগটিকে দূর করব। জলাতঙ্ক রোগটি অত্যন্ত ভয়ংকর। বিশ্বে এ রোগের কোন চিকিৎসা নেই। জলাতঙ্ক রোগে আক্রান্ত হলে মৃত্যু অবধারিত। জলাতঙ্ক রোগটি গৃহপালিত প্রাণী ও বন্য পশুর মাধ্যমে ছড়ায়। জলাতঙ্ক রোগের টিকা আবিষ্কার করেন লুই পাস্তে ১৮৮৫ সালে। জলাতঙ্ক রোগের চিকিৎসা এখন মডার্নাইস করা হয়েছে। কুকুর বিড়ালে কামড় দিলে নাভির নিচে ১৪টি ইনজেকশন দেওয়া হত। এখন ব্যাথা নাশক ইনজেকশন মাচ্ছেলে চার থেকে পাঁচটি ডোজ দিলেই হয়। রোগ থেকে বাঁচার উপায় কারণ-৫টি ১।খাওয়া বা ঘুমের সময় কোন প্রাণীকে বিরক্ত করবেন না। ২। দুটি প্রাণী ঝগড়া করার সময় তাদের আলাদা করতে যাবেন না।৩। তাদেরকে ভয় দেখাবেন না বা রাগাবেন না।৪। অপরিচিত প্রাণীর সংস্পর্শ এরিয়ে চলুন।৫।পোষা প্রাণীকে বন্যপ্রাণী সাথে মিশতে দেবেন না।

আক্রান্ত হলে করণীয়: ১।আচড় বা কামরানোর স্থান ১৫ মিনিট ধরে কাপড় কাঁচা সাবান পানি দিয়ে ধুয়ে দিন।২। অতি দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শে জলাতঙ্ক রোগের প্রতিরোধক টিকা দিন। আক্রান্ত হলে বর্জনীয়: ক্ষতস্থান ঢেকে রাখা যাবে না বা ব্যান্ডেজ করা যাবে না।২। লবণ, গুড়, থালা ও পানি পড়া জলাতঙ্ক প্রতিরোধ করে না। প্রতিরোধে করণীয়: আপনার পোষা কুকুর বিড়াল বেজি বা বানরকে জলাতঙ্ক প্রতিরোধক টিকা দিন।


error: Content is protected !!