শনিবার, ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং, ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৬ই জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
শনিবার, ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং
শরীয়তপুরে মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির লক্ষে পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসি কনফারেন্স

বিচারের বাণী নিভৃতে কাঁদতে দিব নাঃ বিচারক শেখ মফিজুর রহমান

বিচারের বাণী নিভৃতে কাঁদতে দিব নাঃ বিচারক শেখ মফিজুর রহমান

শরীয়তপুর চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ৯টি বিচারিক আদালতের মাধ্যমে মামলা নিস্পত্তি করে থাকে। দ্রুত মামলার বিচার নিস্পত্তির লক্ষ্যে পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসি কনফারেন্স করেছে শরীয়তপুর চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।

জেলা ও দায়রা জজ আদালত ভবনে ১২ নভেম্বর শনিবার দুপুরে অনুষ্ঠিত পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেসি কনফারেন্সে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. সালেহুজ্জামান-এর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক শেখ মফিজুর রহমান।

এ সময় সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুর রহমান বলেন, ফৌজদারী বিচার ব্যবস্থায় প্রকাশ্যে ও দ্রুততার সাথে বিচার হয়। বিচারের বাণী নিভৃতে কাঁদতে দিব না। আসামী গ্রেফতার, সাক্ষী উপস্থাপন, তদন্তসহ অনেক ক্ষেত্রে পুলিশ বিভাগের সরাসরি সম্পৃক্ততা রয়েছে। অনেক সময় আসামীকে রিমান্ডে নিয়ে তেমন কোন ফল পাওয়া যায় না। সেই ক্ষেত্রে বিজ্ঞান ভিত্তিক কোন কৌশল অবলম্বন করা যেতে পারে। মানব পাচারের ক্ষেত্রে বাদী ও ভিকটিম লোভে পড়ে দালালের ফাদে পড়ে সকল ক্ষেত্রেই জনসচেতনতা প্রয়োজন। সেই বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারলে মানবপাচার কমবে। আমি পৃথিবীটাকে যেমন দেখেছি নিজ নিজ অবস্থান থেকে তার চেয়ে আরো একটু ভালো করার চেষ্টা করলে সমাজ থেকে অপরাধ কমিয়ে আনা সম্ভব।

সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. হেদায়েতুল্লাহ-এর সভা পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার মো: সাইফুল হক, অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট চাঁদনী রূপম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ তালুত, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট জহিরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ভাস্কর দাস, সিভিল সার্জন এর প্রতিনিধি ডাঃ মোহাম্মদ সাইফুর রহমান, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্রাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম। আইন আলোচনা উপস্থাপন করেন সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ শামসুল আলম। এসময় পুলিশের সকল বিভাগ, পিবিআই, মাদক, স্বাস্থ্য বিভাগ ও জেলা কারাগারের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. সালেহুজ্জামান বলেন, গত অক্টোবর মাসে ৯টি বিচারিক আদালতে ৩ হাজার ১৮১টি মামলা নিয়ে বিচার কার্য শুরু হয়। সেই মাসে আরো ২০৪ টি নতুন মামলা যোগ হয়। মাস শেষে দেখা গেছে ২০৬ টি মামলা নিস্পত্তি হয়েছে। এতে বুঝা যায় মামলা নিস্পত্তির সংখ্যা বেশী। মামলা নিস্পত্তির সংখ্যা আরো বেগবান করতে ময়না তদন্ত ও চিকিৎসা সনদ স্পষ্ট অক্ষরে খেলা, নির্ধারিত সময়ে মামলা তদন্ত শেষ করা, আসামী গ্রেফতার ও সাক্ষি হাজির করার বিষয় জড়িত। আদালত সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সংস্থাগুলো দায়িত্ববান হলে মামলা নিস্পত্তির সংখ্যা বাড়িয়ে আনা সম্ভব হবে।

পুলিশ সুপার সাইফুল হক বলেন, আমরা মাত্র ১০ শতাংশ মাদক উদ্ধার করতে পারি। ৯০ শতাংশ মাদক সেবন হয়। মাদক সেবনের কুফল সমাজে প্রভাব ফেলছে। কিছুদিন পূর্বে শরীয়তপুর সরকারি কলেছের অধ্যক্ষ ফোনে আমাকে জানায়, ‘তার ছেলে একজন মাদকাশক্ত। মাদকের জন্য টাকা না পেয়ে সে পরিবারে উৎপাত করে। এখন ওই পরিবার পুলিশের সহায়তা চায়। যতদিন পর্যন্ত আমরা নিজ নিজ অবস্থান থেকে সচেতন হতে না পারব ততদিন আমাদের সমাজ থেকে মাদক নির্মূল করা সম্ভব না। পুলিশের পক্ষ থেকে জেলাকে মাদকমুক্ত করার চেষ্টা চলছে।


error: Content is protected !!