বৃহস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ ইং, ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩রা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ ইং

ডামুড্যা পৌরসভার ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের বাজেট ঘোষনা

ডামুড্যা পৌরসভার ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের বাজেট ঘোষনা

ডামুড্যা পৌরসভার পক্ষ থেকে আপনাদের সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে পৌরসভার ২০১৮-২০১৯ ইং অর্থ বৎসরের জন্য ১২ কোটি ৩৫ লক্ষ ১৫ হাজার ৪শ ৩৬ টাকার বাজেট ঘোষনা করেছেন ডামুড্যা পৌর মেয়র মোঃ হুমায়ুন কবির। বর্তমান বাজেটে উন্নয়ন আয় লক্ষ্যমাত্রা ৯ কোটি ৪৯ লক্ষ ৭০ হাজার ৪শ ৩৬ টাকা এবং রাজস্ব আয় লক্ষ্যমাত্রা ২ কোটি ৮৫ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।
এই বাজেট ঘোষনাকালে মেয়র বলেন, আমার তৃতীয় কার্যকালের তৃতীয় এবং পৌরসভার বাইশতম বাজেটখানা ঘোষনা করতে পেরে আমি সর্বপ্রথম মহান রাব্বুল আলামীনের প্রতি শুকরিয়া আদায় করছি।
আজ আমার মনে পরছে ডামুড্যার সেই কৃতি সন্তানের কথা যিনি এই পৌরসভার রুপকার, যিনি স্বপ্ন দেখতেন তার এলাকার লোকজন দেশের সর্বোচ্চ নাগরিক সেবা কিভাবে পেতে পারে, কি ভাবে তার এলাকা উন্নয়নের সর্বোচ্চ শিখরে পৌছুতে পারে। কিভাবে তার শৈশবের এই লীলাভূমিটি থাকবে একটি মডেল টাউন হিসাবে। যিনি বাংলাদেশের যে ক’জন নীতিনির্ধারনী নেতা আছেন তার মধ্যে অন্যতম। সেই মহান নেতা আলহাজ্ব আঃ রাজ্জাক সাহেব। যিনি এই পৌরসভাকে প্রাতিষ্ঠানিক রুপ দেওয়ার জন্য সার্বিক সাহায্য সহযোগিতা করেছেন। যিনি তৎকালিন সফল পানিসম্পদ মন্ত্রী এবং পানি সম্পদ বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি হিসাবে নিয়োজিত থেকে মৃত্যুবরণ করেন। যার নামের আগে বা পরে কোন বিশেষনের আর দরকার হয় না। যার কথা এই পৌরসভায় স্বর্নাক্ষরে আজীবন লেখা থাকবে। ডামুড্যা পৌরসভার প্রতিষ্ঠাতা এই নেতার প্রতি রইল আমার এবং আমার পরিবারের পক্ষ থেকে সশ্রদ্ধ সালাম ও কৃতজ্ঞতা।
বাজেট হলো কোন ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা রাষ্ট্রের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার আগাম সিদ্ধান্ত। সেই লক্ষ্যে ডামুড্যা পৌরসভার ২০১৮-২০১৯ সালের এটি একটি আগাম সিদ্ধান্ত বা পরিকল্পনা। পৌরসভার প্রতিটি সেক্টর এবং সম্মানিত কাউন্সিলরগন তথা সমগ্র পৌরবাসীর প্রত্যক্ষ সহযোগিতা ব্যতীত বাজেট খানা বাস্তবায়ন সম্ভব নয়। সর্বোচ্চ নাগরিক সুবিধা প্রদান করতে হলে দরকার অর্থ। আর পৌরসভার অর্থ যোগানের প্রধান কার্যক্রম পৌরকর আদায়। আপনাদের সার্বিক সহযোগিতা না হলে লক্ষ্যমাত্রা অনুযাযী পৌরকর আদায় করা যাবেনা।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের নিয়ন্ত্রনাধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে পৌরসভা একটি গুরুত্বপূর্ন প্রতিষ্ঠান। পৌরসভার মূল কাজ হলো নগর উন্নয়ন কার্যক্রম, সামাজিক ন্যায় বিচার, উত্তরাধিকার, জাতীয়তা সনদ প্রদান, রাস্তাঘাট পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করন, স্বাস্থ্য সেবা প্রদান, পৌরবাসীর আর্থ সামাজিক উন্নয়ন, জম্ম-মৃত্যু নিবন্ধন, শহর উন্নয়ন পরিকল্পনা সহ বিভিন্ন রকম সেবামূলক যাবতীয় কার্যক্রম। পৌরসভায় আমার বিগত কার্যকালের অভিজ্ঞতার আলোকে আমি মনে করি জম্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত সকল প্রকার নাগরিক সুবিধা অবশ্যই পৌরসভার উপর ন্যস্ত করা উচিত। ডামুড্যা পৌরসভার অধিকাংশ অধিবাসী দরিদ্র ও খেটে খাওয়া। কোন শিল্প প্রতিষ্ঠান না থাকায় শিক্ষিত, অর্ধ শিক্ষিত বেকার সমস্যা অত্যন্ত প্রকট। কারিগরি শিক্ষা সহ সাধারন শিক্ষায় শিক্ষিতের সংখ্যা খুবই কম। তথাপি এত দ্রুত এবং অল্প সময়ে অন্যকোন প্রতিষ্ঠান থেকে সাধারন মানুষ সেবা পায় কি না আমার জানা নেই।
সমগ্র বিশ্ব আজ গ্লে¬াবাল ভিলেজে পরিণত হয়েছে। বিশ্ব এখন শিক্ষা-দীক্ষা, জ্ঞান-বিজ্ঞানে প্রতিযোগিতা মূলক ভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। আজকের সমাজে সকলেই অসৎ, একথা সুস্থ্য সচেতন লোকের নয় বরং সৎ লোকের সংখ্যাই বেশি। অসৎ, ভন্ড, বদমায়েশ, চোর, লম্পট, ছিনতাইকারী, চাঁদাবাজ, ধোকাবাজ সমাজে আছে ঠিকই কিন্তু তাদের সংখ্যা সৎ মানুষের তুলনায় খুবই নগন্য। ডামুড্যা পৌরসভাকে সন্ত্রাস, মাদক ও চাঁদাবাজমুক্ত একটি মডেল পৌরসভা হিসাবে রুপান্তরিত করতে চাই। হয়তোবা এই পৌরসভার সকল সমস্যার সমাধান আমি একা করতে পারবো না। তথাপিও আপনাদের ভালোবাসা এবং একান্ত সহযোগীতা পেলে আমি আমার সমস্ত শক্তি ও আন্তরিকতা দিয়ে পৌরসভার সার্বিক উন্নয়ন করে যাব। পরিকল্পিত ভাবে একটি আবাসযোগ্য নগরী তৈরি করে যেতে পারবো নিজেদের জন্য এবং আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজম্মের জন্য। আসুন আমরা সকলে দলমত ভূলে নির্বিশেষে এগিয়ে আসি। এই পৌরসভাকে গড়ে তুলি একটি তিলোত্তমা নগরী হিসাবে। এই হোক আমাদের আগামী দিনের অঙ্গীকার।
অনেক কর্মব্যস্ততার মধ্যে কষ্ট স্বীকার করে পৌরসভার বাজেট অধিবেশনে আসার জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। ধন্যবাদ জানাচিছ সাধারন আসন ও সংরক্ষিত আসনের মহিলা কাউন্সিলরদের যারা আমার পাশে থেকে আমার সকল কাজে দিক নির্দেশনা দিয়েছেন ও সার্বিক সহযোগিতা করেছেন। ধন্যবাদ জানাচ্ছি, সম্মানিত অতিথি বৃন্দদের। ধন্যবাদ জানাচ্ছি সাংবাদিক ভাই ও বোনদের যারা নাগরিক স্বার্থে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে সমাজের উন্নয়ন করেন। ধন্যবাদ জানাচ্ছি কমিটির সকল সদস্যদের যারা অক্লান্ত পরিশম করে বাজেট প্রনয়ন করেছেন। ধন্যবাদ জানাচ্ছি পৌরসভার সকল কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দদের যারা আমার সকল কর্মকান্ডে সহযোগীতা করছেন। ধন্যবাদ জানাচ্ছি আমার প্রিয় পৌরবাসীদের ও আপাময় জনসাধারনকে। আমার জন্য দোয়া করবেন।


error: Content is protected !!