বৃহস্পতিবার, ২৯শে জুলাই, ২০২১ ইং, ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জিলহজ্জ, ১৪৪২ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২৯শে জুলাই, ২০২১ ইং

শরীয়তপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের নির্মানাধীন ঘরের দেয়াল ভেঙে দিল দুর্বৃত্তরা

শরীয়তপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের নির্মানাধীন ঘরের দেয়াল ভেঙে দিল দুর্বৃত্তরা

প্রধানমন্ত্রীর কর্তৃক ঘোষিত উপহার আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর ‘‘ক’’ শ্রেণী যাদের জমি নাই ঘরও নাই প্রকল্পের নির্মাণাধীন ঘর ভেঙে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

ঘটনাটি ঘটেছে শরীয়তপুর জেলার গোসাইরহাট উপজেলার সামন্তসার ইউনিয়নে। সেখানে আশ্রয়ণ প্রকল্প-২এর নির্মাণাধীন ৩২ ঘরের ১৫টি ঘরের পিলার ও স্থাপনা ভেঙে দেয় দুর্বৃত্তরা।

গোসাইরহাট উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার সূত্রে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধীকার প্রকল্প আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর তালিকার ভূমিহীন গৃহহীন অসহায় পরিবারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে গোসাইরহাটে বিভিন্ন ইউনিয়নে আশ্রয়ন প্রকল্প-২ নির্মাণাধীন। এরমধ্যে সামন্তসার ইউনিয়নে ৩২টি, কুচাইপট্টি ইউনিয়নে ৬০টি, আলাওলপুর ইউনিয়নে ৫৮ টি এবং কোদালপুরে ৫০ টি ঘর নির্মাণাধীন রয়েছে। এর মধ্যে সামন্তসার ইউনিয়নে ৫৭ নং সামন্তসার মৌজায়ং ৬৪ শতাংশ জমির উপর ৩২ টি ঘর নির্মাণ করছে সরকার।

মঙ্গলবার ১৩ জুলাই বিকেলে নির্মাণাধীন ওই ৩২ টি ঘরের মধ্যে ১৫ টি ঘরের পিলার এবং কিছু স্থাপনা ভেঙে ফেলে দুর্বৃত্তরা। সামন্তসার ইউনিয়নের চৌকিদার ও প্রকল্প এলাকার নিরাপত্তা কর্মী মোঃ আবুল কালাম সর্দার দৈনিক রুদ্রবার্তাকে বলেন, মঙ্গলবার বিকেলের দিকে দশ-বারোজন লোক এসে ঘরগুলো ভাঙতে থাকে আমি টের পেয়ে জোরে চিৎকার দিলে দুর্বৃত্তরা প্রকল্প এলাকা থেকে দৌড়ে পালিয়ে যায়।

প্রকল্পের নির্মাণ শ্রমিক মোঃ মনির হোসেন দৈনিক রুদ্রবার্তাকে বলেন, ১৫-২০ বছরের কিছু যুবক তরুণরা মাদক সেবন করতে আসলে তাদেরকে বাধা দিলে নির্মাণাধীন ঘরগুলো ভাঙতে শুরু করে আমরা জোরে চিৎকার দিলে দুর্বৃত্তরা সটকে পড়ে।

এলাকার বাসিন্দা মোঃ আব্দুল খালেক পিন্টু বেপারী দৈনিক রুদ্রবার্তাকে বলেন, মাদকাসক্ত যুবকরা স্থাপনা ভেঙে দেয়, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত দরিদ্র মানুষের জন্য দেয়া প্রকল্প যারা ভেঙেছে তারা কাজটি অবশ্যই ঠিক করেনি এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

বুধবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার মো. আলমগীর, শরীয়তপুরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আব্দুর রহিম ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার চৌধুরী।
প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার চৌধুরী দৈনিক রুদ্রবার্তাকে বলেন, ক শ্রেণীভূক্ত ঘর নাই জমি নাই প্রকল্পের আওতায় দুই কক্ষ বিশিষ্ট ঘর ও একটি বারান্দা এবং একটি শৌচাগার ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা করে প্রতি ঘরের জন্য বরাদ্দ রয়েছে, দুর্বৃত্তরা সামন্তসার ইউনিয়নের প্রকল্পের ১৫ টি ঘরকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাওয়া গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আলমগীর হুসাইন দৈনিক রুদ্রবার্তাকে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দেয়া প্রকল্পের ৩২ টি ঘরের মধ্যে ১৫ টি ঘর ভেঙে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা, অতি দ্রুত দুর্বৃত্তদের কে চিহ্নিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।