রবিবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২১ ইং, ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১লা জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরী
রবিবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২১ ইং
কোদালপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন

নির্বাচনে ৯টি ওয়ার্ডকেই ঝুঁকিপূর্ণ, মডেল ইউনিয়ন করার প্রতিশ্রুতি: চেয়ারম্যান প্রার্থী মিজানুর রহমান

নির্বাচনে ৯টি ওয়ার্ডকেই ঝুঁকিপূর্ণ, মডেল ইউনিয়ন করার প্রতিশ্রুতি: চেয়ারম্যান প্রার্থী মিজানুর রহমান

আগামী ২৮ নভেম্বর আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন-২০২১ কে সামনে রেখে কোদালপুর ইউনিয়নে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন কোদালপুর ইউনিয়নের বারবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান আবারও এবার প্রার্থী মো: মিজানুর রহমান এবং তিনি চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে কোদালপুরে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন।

দীর্ঘ ১০ বছরে কোদালপুর ইউনিয়নে তিনি যে অবদান রেখেছেন, সে বিষয়ে সাংবাদিকদের জিজ্ঞাসাবাদে তিনি বলেন, আমি গত ১০ বছরে কোদালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে জননেতা নাহিম রাজ্জাক-এর সহযোগিতায় কোদালপুর ইউনিয়নের ৩০ কিলোমিটার রাস্তা পাকা করেছি। ৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে খালাসি পাড়া ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। ১৪টি ব্রিজ ও ৭টি কালভার্টের কাজ ইতিমধ্যে সমাপ্ত হয়েছে। কোদালপুরের ১১টি প্রাইমারি স্কুলের নতুন ভবন কার্যক্রম সমাপ্ত হয়েছে। কোদালপুরের একটি মা ও শিশু হাসপাতাল নির্মাণ হয়েছে, যাতে সেবা প্রদান চলছে।

আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী “শেখ হাসিনার উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ” কোদালপুর ইউনিয়ন শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় এসেছে। এমনকি সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে দক্ষিণ কোদালপুরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে গৃহহীন ৬০টি পরিবারকে গুচ্ছগ্রাম করে ঘর নির্মাণ করে দিতে সক্ষম হয়েছি। মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ৫০ জন পরিবারকে বিশেষ প্রকল্পের আওতায় ঘর নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে। শরীয়তপুরের একমাত্র ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়ণ প্রকল্প, যা দক্ষিণ কোদালপুরে নির্মিত হতে যাচ্ছে। আমরা এছাড়াও অনেক উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পন্ন করেছি।

প্রায় ৪০-৪৫টি কাঁচা রাস্তা হয়েছে, বেড়িবাধ হয়েছে; যেখানে মানুষ নাগরিক সুবিধা পাচ্ছে। তিনটি কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে আমরা স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করে যাচ্ছি। আগামীতে আমাকে চশমা মার্কায় ভোট দিয়ে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করলে, যে সকল কাঁচা রাস্তা আছে, তা পাকা রাস্তা করার উদ্যোগ গ্রহণ করবো। মাদক বিরোধী কার্যক্রম, বাল্যবিবাহরোধসহ সকল কার্যক্রম কোদালপুর ইউনিয়নে অব্যাহত থাকবে। আমাদের অভিভাবক নাহিম রাজ্জাক এমপি সহযোগিতা নিয়ে কোদালপুর ইউনিয়নকে একটি আধুনিক মডেল হিসেবে গড়ে তুলব ইনশাল্লাহ। এরপর নির্বাচন সম্পর্কে সাংবাদিকদের জিজ্ঞাসাবাদে কোদালপুরের নয়টি ওয়ার্ডকেই ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে আখ্যায়িত করেন মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।