সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ ইং, ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২২শে শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরী
সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ ইং
শরীয়তপুরের জাজিরা

পদ্মা পাড়ে স্থায়ী ও টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি ভাঙনকবলিত মানুষের

পদ্মা পাড়ে স্থায়ী ও টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি ভাঙনকবলিত মানুষের

ভাত চাই না, বাঁধ চাই; ত্রাণ চাই না, টেকসই বাঁধ চাই; আশ্বাস নয়, বাস্তবায়ন চাই; ভিটে-মাটি নিয়ে বাঁচতে চাই’ স্লোগানে ভারী হয়ে উঠেছে পদ্মা পাড়ের পাথালিয়াকান্দি এলাকা।

শুক্রবার (০৬ মে) সকাল ১০টার দিকে শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার জাজিরা ইউনিয়নের পাথালিয়াকান্দিতে স্থায়ী ও টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন করছেন পাথালিয়া কান্দি সততা সমাজ জল্যাণ যুব সংঘ ও ভাঙনকবলিত মানুষ।

মানববন্ধনে পাথালিয়া কান্দি সততা সমাজ জল্যাণ যুব সংঘের সভাপতি প্রভাষক মো. ইয়াকুব মাদবর, সহসভাপতি মো. ইমরান হোসেন, সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মাহমুদ, জাজিরা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান হাওলাদার, আওয়ামী লীগ নেতা রেজাউল করিম, সাবেক মেম্বার আকতার মাদবর, আমিনুল ইসলাম সেন্টু ছৈয়াল, ইচাহাক মাদবর প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। মানববন্ধনে উপজেলার অন্তত ৫০০ মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

পাথালিয়াকান্দি গ্রামের বাসিন্দা ইচাহাক মাদবর বলেন, গেল তিন বছরে আমার ১৫ বিঘা বসতবাড়ি ও জমি নদীগর্ভে চলে গেছে। সব হারিয়ে পথে বসেছি আমি। তাই বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীমের কাছে দাবি আগামী বর্ষার আগে যেন টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, গত তিন বছরে পদ্মা সেতুর জাজিরা থেকে নড়িয়া বেড়িবাঁধ পর্যন্ত ১৬ কিলোমিটার এলাকায় সহস্রাধিক পরিবারের বসতবাড়ি, ফসলি জমি, মসজিদ, মাদরাসা, স্কুলসহ বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান নদীর গর্ভে চলে গেছে। আমরা সর্বচ্চ হারিয়েছি। এখন দ্রুত স্থায়ী ও টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা প্রয়োজন। এ ব্যাপারে জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এসএম আহসান হাবীব বলেন, পদ্মা সেতুর জিরো পয়েন্ট থেকে নড়িয়া বেড়িবাঁধ পর্যন্ত এলাকায় স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের জন্য প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। নির্দেশ পেলে বাঁধের কাজ শুরু করা হবে।