বৃহস্পতিবার, ২রা জুলাই, ২০২০ ইং, ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ই জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২রা জুলাই, ২০২০ ইং

নড়িয়ায় মাদকসেবী ও জুয়াড়ীদের দ্বারা সাবেক মেম্বার আহত

নড়িয়ায় মাদকসেবী ও জুয়াড়ীদের দ্বারা সাবেক মেম্বার আহত

নড়িয়া উপজেলা ভোজেশ্বর ইউপি’র চান্দনী গ্রামের মৃত সাকিম আলী ছৈয়ালের ছেলে সাবেক মেম্বার সোহরাব আলী ছৈয়াল(৭৫) মাদকসেবী ও জুয়াড়ীদের দ্বারা আহত হয়ে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি আছেন। গত ১৩-ই নভেম্বর বুধবার রাত সাড়ে ৭টায় বাজার থেকে তার নিজ বাড়িতে ফেরার পথে বাড়ির সামনে আরশেদ আলী ছৈয়ালের দুই পুত্র ইউসুফ আলী(৩৫) ও সোহরাব আলী ছৈয়াল(৩০), কুটি মিয়া ছৈয়ালের ছেলে শহিদুল হক ছৈয়াল(২০), আলমগীর বেপারীর ছেলে সাব্বির বেপারী(১৮) এবং অজ্ঞাত আরও কয়েকজন মাদকসেবী ও জুয়াড়ী মিলে সাবেক মেম্বার সোহরাব আলী ছৈয়াল(৭৫)কে মেরে ফেলার পায়তারায় লাঠি দিয়ে এলোপাথাড়ি আক্রমণ করে মারাত্মকভাবে আহত করে পালিয়ে যায়। পরে বাড়ির লোকজন তার (সোহরাব আলী ছৈয়ালের) কান্নার চিৎকার শুনে আহত অবস্থায় শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
এ বিষয়ে অসুস্থ সোহরাব আলী ছৈয়ালকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, আমার বাড়ির পাশে একটি ভিটা আছে। ঐখানে আরশেদ আলী ছৈয়ালের দুই পুত্র ইউসুফ আলী(৩৫) ও সোহরাব আলী ছৈয়াল(৩০), কুটি মিয়া ছৈয়ালের ছেলে শহিদুল হক ছৈয়াল(২০), আলমগীর বেপারীর ছেলে সাব্বির বেপারী(১৮)সহ অনেকে নেশাজাতীয় দ্রব্য খায় ও তাস দিয়ে জুয়া খেলে। এটা আমি বাধা প্রদান করায় ওরা আমাকে গত বুধবার রাতে লাঠি দিয়ে এলোপাথাড়ি মেরে পালিয়ে যায়। আমি শুধু উল্লেখিত কয়েকজনকে চিনতে পেরেছি। মামলার বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, মামলা করিনি। কাউকে জানান নি? জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, ভোজেশ্বর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শুনে আমাকে দেখতে এসেছে। তাকে বিষয়টি অবগত করেছি।
ভোজশ্বর ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হক বেপারীকে মুঠোফোনে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, একজন গণ্যমান্য বয়স্ক মানুষকে কে বা কারা মেরেছে? তা উদঘাটন করে বিচার করা হবে।
সোহরাব আলী ছৈয়ালের স্ত্রী জাহানারা বেগমকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, আমরা আমার স্বামীর চিৎকার শুনে বাড়ির ঘাটায় আসি এবং ইউসুফ, সোহরাব, শহিদুলকে দেখতে পাই আর কিছু লোকজনকে দৌড়াইয়া পালাইয়া যাইতে দেখি। ওদের চিনি না। পরে তাকে আহত অবস্থায় তাড়াতাড়ি হাসপাতালে নিয়া যাই। মামলার হয়েছে কিনা জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, মামলা করলে আরও অসুবিধা আছে।