Wednesday 21st February 2024
Wednesday 21st February 2024

Notice: Undefined index: top-menu-onoff-sm in /home/hongkarc/rudrabarta.net/wp-content/themes/newsuncode/lib/part/top-part.php on line 67

শরীয়তপুরে পিকআপে আগুন, চালকের ক্ষতি ২ লাখ টাকা

নড়িয়ায় দুর্বৃত্তের দেওয়া আগুনে পুড়ে যাওয়া পিকআপ।

শরীয়তপুরের নড়িয়ায় চলমান হরতাল-অবরোধের মধ্যে সোমবার দিবাগত রাতে দুর্বৃত্তরা একটি পিকআপে আগুন দিয়েছে। এতে পিকআপের ইঞ্জিন ও ওয়ারিং পুরে গেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার মধ্য চাকধ গ্রামের বাসিন্দা মামুন বেপারী ওই পিকআপের মালিক ও চালক। ২০১৮ সালে তিনি একটি পিকআপ গাড়ি ক্রয় করেন। সাড়ে ৭ লাখ টাকা ধারদেনা করে পিকআপটি ক্রয় করা হয়। তিনি নিজেই সেটি ভাড়ায় চালাতেন।

নড়িয়ার বিভিন্ন খামার থেকে মাছ নিয়ে ঢাকা, নারায়নগঞ্জ, লক্ষীপুর, ফরিদপুরের বিভিন্ন স্থানে যেতেন। চলমান হরতাল-অবরোধের কারণে ১ সপ্তাহ যাবৎ পিকআপ নিয়ে কোথায়ও যাননি মামুন। বাড়ির পাশে ভোজেশ্বর-চাকধ সড়কের পাশে গাড়িটি পার্ক করে রেখেছিলেন।

সোমবার দিবাগত রাত আগাইটার দিকে এক পথচারির চিৎকারে মামুন বাড়ি থেকে বেরিয়ে দেখেন তার একমাত্র আয়ের অবলম্বন পিকআপটি আগুনে জ্বলছে। স্থানীয় বাসিন্দা ও স্বজনরা মিলে পানি দিয়ে আগুন নেভান। ততক্ষনে পিকআপের ইঞ্চিন ও ওয়ারিং পুরে যায়।

মামুন বলেন, ৫ বছর ধরে পিকআপটি এখানে রাখা হয়। কখনো কোন অসুবিধা হয়নি। আমার কোন শত্রু নেই। তাহলে কারা আগুন ধরিয়ে দিল। পানি দিয়ে আগুন নেভানোর সময় পেট্টোলের গন্ধ এসেছিল। আমার ধারনা কেউ পেট্টোল দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। এলাকার এক লোক সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় আগুন চোখে পরে তখন তিনি চিৎকার-চেঁচামেচি করেন। বাড়ি থেকে এসে দেখি আমার পরিবারের বাঁচার অবলম্বনটি পুড়ছে। আল্লাহই জানেন আমাদের সাথে কেন এমন হল? যে পরিমান ক্ষতি হয়েছে তা মেরামত করতে ২ লাখ টাকা লাগবে। আমি এ টাকা কোথায় পাব?

নড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন, মধ্য চাকধ এলাকায় একটি পিকআপে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা এমন তথ্য পেয়েছি। ওই ঘটনা তদন্ত করা হচ্ছে। প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে শত্রুতাবসত কেউ এমন কাজ করেছে। আর চলমান আন্দোলনের কোন প্রভাব নড়িয়ায় নেই। তাই এ ঘটনা ওই আন্দোলনের কোন অংশ নয়।

ওসি আরও বলেন, পিকআপের মালিক মামুন বেপারীর অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা দায়ের করা হবে। দুর্বৃত্তদের গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।