মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ ইং, ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৫ই জিলহজ্জ, ১৪৪৩ হিজরী
মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ ইং

যৌক্তিক চিন্তাভাবনার জন্য শিশু-কিশোরদের প্রোগ্রামিং শিখতে হবে: মোস্তাফা জব্বার

যৌক্তিক চিন্তাভাবনার জন্য শিশু-কিশোরদের প্রোগ্রামিং শিখতে হবে: মোস্তাফা জব্বার

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, জ্ঞানভিত্তিক  ডিজিটাল সাম‌্য সমাজ প্রতিষ্ঠার জন‌্য উপযোগী মানব সম্পদ তৈরি করতেই হবে। লক্ষ‌্য অর্জনে শিশু-কিশোরদের মধ‌্যে ডিজিটাল প্রোগ্রামিং শিক্ষার প্রসার অপরিহার্য। যৌক্তিক চিন্তাভাবনার জন্য প্রোগ্রামিং শিখতে হবে। যদি কেউ প্রোগ্রামিং বা কোডিং জানে তাহলে তার কাছে পৃথিবীর কোন কাজই কঠিন হবে না বলে উল্লেখ করেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী  গতকাল শনিবার সন্ধ‌্যায় রাজধানীর লালমাটিয়ায় ইএমকে সেন্টার ও বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের যৌথ উদ‌্যোগে আয়োজিত তিন দিনব‌্যাপী প্রাথমিক শিক্ষায় কোডিং বিষয়ে শিক্ষক প্রশিক্ষণের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের প্রধান নির্বাহী সাংবাদিক মুনীর হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শিক্ষাবিদ ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের প্রাথমিক শিক্ষাক্রম কমিটির সদস্য প্রফেসর ড. এ কে এম রিয়াজুল হাসান, সোয়াপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজ হোসাইন এবং প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষকদের পক্ষে বাংলাবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ইসরাত জাহান  প্রমূখ বক্তৃতা করেন। ।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল যুগের জন‌্য দক্ষ‌ মানব সম্পদ তৈরি করতে না পারলে কাঙ্খিত বাংলাদেশ তৈরি করা যাবে না। সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে শিক্ষায় ডিজিটাল রূপান্তরের কাজ শুরু হয়েছে। ইতোমধ‌্যে মিশ্র শিক্ষা পদ্ধতি প্রবর্তণের উদ‌্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। দেশের ৬৫০টি প্রাথমিক বিদ‌্যালয়ে  ডিজিটাল শিক্ষা কার্যক্রম আমরা শুরু করতে যাচ্ছি। প্রথম শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পাঠ‌্যক্রমের ডিজিটাল কন্টেন্ট তৈরি করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন শিক্ষায় ডিজিটাল রূপান্তরের এই স্বপ্নদ্রষ্টা। ডিজিটাল প্রযুক্তি বিকাশে দীর্ঘ ৩৫ বছরের পথচলার অভিজ্ঞতা তুলে ধরে জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেন, কম্পিউটার বিজ্ঞানে পড়া লেখা না করেও জীবনের পাঠশালা থেকে এই বিদ‌্যা আয়ত্ত্ব করেছি। একাগ্রতা ও আন্তরিকতার সাথে কাজ করলে সবাই তা পারবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। স্ক্র্যাচ প্রোগ্রামিং নিয়ে এমন উদ্যোগে শিক্ষকদের অংশগ্রহণ করায় ধন্যবাদ জানান ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী। তিনি বলেন, সব কিছুর মূল সমাধান লুকিয়ে আছে শিক্ষায়। মন্ত্রী ২১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অংশগ্রহণকারী শিক্ষকের সঙ্গে মতবিনিময় করেন মন্ত্রী।

ড. জাফর ইকবাল প্রশিক্ষণার্থীদের উদ্দেশ‌্যে বলেন, এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রম প্রণয়নের মাধ্যমে আপনারা এমনভাবে প্রোগ্রামিং শেখানোর পদ্ধতি তৈরি করবেন, যেন শিক্ষার্থীদের প্রোগ্রামিং ভীতিটা গোড়া থেকেই দূর হয়। যেন তারা বড় হয়ে সফটওয়্যারভিত্তিক জটিল সব সমস্যার সমাধান করতে পারে। 

প্রফেসর ড. এ কে এম রিয়াজুল হাসান বলেন, নতুন কারিকুলাম অনুযায়ী প্রাথমিক শিক্ষায় স্ক্র্যাচ প্রোগ্রামিং তৃতীয় শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণিতে যুক্ত করা হয়েছে। নতুন কারিকুলামে পরীক্ষা পদ্ধতির মূল্যায়ন বদল করা হয়েছে। এছাড়া ধারাবাহিক মূল্যায়নের উপরে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।


error: Content is protected !!