বৃহস্পতিবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২১ ইং, ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২০শে রজব, ১৪৪২ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২১ ইং

জানুয়ারি মাসে স্বেচ্ছায় ৫৭৯ ব্যাগ রক্তদান করলো প্রতিক্ষণ ব্লাড রিজার্ভেশন অব বাংলাদেশ

জানুয়ারি মাসে স্বেচ্ছায় ৫৭৯ ব্যাগ রক্তদান করলো প্রতিক্ষণ ব্লাড রিজার্ভেশন অব বাংলাদেশ

জানুয়ারি মাসে স্বেচ্ছায় ৫৭৯ ব্যাগ রক্তদান করলো পিবিআরবি সংগঠনের সদস্যরা। প্রজন্মের তরুণ ও যুবদের অভিনব ব্লাড ডোনেটিং সংগঠন প্রতিক্ষণ ব্লাড রিজার্ভেশন অব বাংলাদেশ। যার মাধ্যমে স্বেচ্ছায় রক্তদাতা ও রক্ত গ্রহীতাদের সংযোগ ও সামাজিক উন্নয়নের সম্পর্ক সৃষ্টি করা।

বর্তমান করোনা ভাইরাস কোভিড ১৯ প্রাদুর্ভাবেও বিশ্ব যখন নিস্তব্ধ যেখানে প্রতিটি মানুষই তার বা পরিবার নিরাপদ নিয়ে সন্ধিহান সেই সময়ও প্রতিক্ষণ ব্লাড রিজার্ভেশন অব বাংলাদেশের রক্তযোদ্ধা সৈনিকরা মূমুর্ষূদের জীবন বাঁচাতে রক্তদান করে যাচ্ছে।

এ পর্যন্ত প্রতিক্ষণ এর স্বেচ্ছায় রক্তদানের সংখ্যা প্রায় ৭২২৬ ব্যাগ। এই পৃথিবীকে যে অবস্থায় পেয়েছি, তার চেয়েও সুন্দর রেখে যেতে চাই। এই স্লোগানকে সামনে রেখে প্রতিক্ষণ যুব ফাউন্ডেশনের অধীনে ১ জুন ২০০৯ সালে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন এর মাধ্যমে ১৪ ব্যাগ স্বেচ্ছায় রক্তদানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় প্রতিক্ষণ ব্লাড রিজার্ভেরশন অব বাংলাদেশের এর যাত্রা শুরু করে।

বর্তমানে বাংলাদেশে প্রতিক্ষণ সদস্য সংখ্যা প্রায় ১৩ হাজার ৪০০ জন। স্বেচ্ছা সেবকের সংখ্যা প্রায় ৩ হাজার ৫০০ জন। ১০ হাজার রক্তদাতা বা ডোনারের ডেটাবেজ আছে প্রতিক্ষণ পরিচালনা পরিষদের কাছে। আমাদের লক্ষ্য একটি ফিজিক্যাল ব্লাড ব্যাংক তৈরি করা এবং কমপক্ষে ১ কোটি মানুষের রক্ত সংক্রান্ত তথ্য বা ডাটাবেইজ সংরক্ষণ করা। রক্ত সংক্রান্ত নিয়ে প্রতিক্ষণ বর্তমানে তিনটি বিষয়ের উপর কাজ করে যাচ্ছে নিজে রক্ত দেয়া রক্ত সংগ্রহ করে দেয়া এবং রক্ত দাতা তৈরী তে সবাইকে আহবান করা। প্রতিক্ষণ বর্তমানে গড়ে প্রতিদিন ২০-৩০ জন রোগীর রক্তের প্রয়োজন মেটাচ্ছে, যা রোগীদের জীবন বাঁচাতে বিশেষ সহায়ক ভূমিকা পালন করছে।

মানুষের কাছে রক্তদাতাকে পৌঁছে দিতে প্রতিক্ষণের ৮ টি বিভাগীয় সহ একটি কেন্দ্রীয় রক্তদান উপ পরিষদ রয়েছে যা মোট ৩৫০ জনের একটি বিশাল টিম কাজ করছে। যাতে করে জনসাধারণের অর্থ্যাৎ রোগীর লোকেদের সুবিধার্থে এই টিম কাজ করে যাচ্ছে সেচ্ছায়।

প্রতিক্ষণের ওয়েবসাইটে সাধারন মানুষের ব্যবহারকারীদের জন্য যুক্ত করা হবে। ব্লাড গ্রুপ নামে একটি অপশন যেটা স্ব ইচ্ছায় যে যে ফেসবুককে নিজের রক্তের গ্রুপ এর তথ্য জানাবে, তখন সেই তথ্যটি ফেসবুক সংরক্ষণ করবে। যখন কারও রক্তের দরকার হলে তখনই ফেসবুক নোটিফিকেশন এর মাধ্যমে রক্ত গ্রহীতা ও রক্তদাতাদের যুক্ত করে দিবে। পরিশেষে সকল রক্তদাতা ও রক্ত সংগ্রহকারীদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে যুব সমাজকে এগিয়ে আসার আহবান করেন অত্র সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আল সাজিদুল ইসলাম দুলাল।