বৃহস্পতিবার, ২৯শে জুলাই, ২০২১ ইং, ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জিলহজ্জ, ১৪৪২ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২৯শে জুলাই, ২০২১ ইং

শরীয়তপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে বিধবাকে হাতুড়ি দিয়ে পেটানোর অভিযোগ 

শরীয়তপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে বিধবাকে হাতুড়ি দিয়ে পেটানোর অভিযোগ 

শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল থেকে কহিনুর বেগম জানান, আমি বিধবা মানুষ, ছেলে-মেয়ে নিয়ে অনেক কষ্টে দিন যাপন করি। স্বামীর রেখে যাওয়া সম্পত্তিটুকু নিয়ে কোনো মতে বেঁচে আছি। মোনায়েম খারা আমাকে আমার স্বামীর সম্পত্তি ভোগ করতে দিবে না বলেই আমাকে প্রায়ই একা পেয়ে হুমকি ধামকি দেয়, দেয়াল তোলায় বাধা দিলে আমাকে মেরে হাসপাতাল পাঠিয়েছে। আমি বিচার চাই বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন কহিনুর।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, পূর্ব থেকেই জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল উভয় পক্ষের মধ্যে। পূর্ব বিরোধের এক পর্যায়ে জোরপূর্বক জমি দখল করে দেয়াল তোলাকে কেন্দ্র করে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে শাহজাহান খান(৬০), আলেপ খান(৭০), মোনায়েম খান(৬০), হাচিনা বেগম(৬০), পারভীন বেগম(৪২) বিধবা কহিনুর বেগমকে হাতুড়ি, ইট দিয়ে পিটিয়ে বাম হাতসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে। এসময় বিধবার সাথে থাকা মোবাইল ফোন নিয়ে গিয়ে শ্লীলতাহানিও করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে। কহিনুর বেগমের ডাক-চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেছে।

কহিনুর বেগমের ছেলে ইমন(২০) জানান, আমার মাকে শুধু মারেই নাই, এখন উল্টো আমাদের থ্রেট করা হচ্ছে।

এঘটনার বিষয়ে জানার জন্য শাহজাহান খানকে মুঠোফোনে ফোন করা হলে তিনি বলেন, আমি বাড়ি ছিলাম না, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না।

মোনায়েম খানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, এই মহিলা বহুত খারাপ, এমন কোনো ঘটনাই ঘটেনি। তিনি দেয়াল ভেঙে দিয়ে উল্টো হাসপাতালে ভর্তি হয়ে নাটক শুরু করছেন।

এঘটনার বিষয়ে জানার জন্য পালং মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) আখতার হোসেন মুঠোফোনে জানান, এঘটনায় উভয় পক্ষ মামলা করেছেন, থানা থেকে ঘটনাস্থলে পুলিশ গেছে। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।