রবিবার, ১৭ই অক্টোবর, ২০২১ ইং, ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরী
রবিবার, ১৭ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের সামনে মরদেহ রেখে গেলেন বাসের সহযাত্রীরা

শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের সামনে মরদেহ রেখে গেলেন বাসের সহযাত্রীরা

শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের গেইটের সামনে এক ব্যক্তির মরদেহ ফেলে রেখে যান বাসের সহযাত্রীরা। রোববার (১০ অক্টোবর) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। পরে সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) সহযোগিতায় দু’ঘণ্টা পর মরদেহটি উদ্ধার করে হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়।

মৃত ব্যক্তির নাম নুরুল ইসলাম কুট্টি (৭০)। তিনি বরিশাল জেলার মুলাদী এলাকার বাসিন্দা।

সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মনদীপ ঘরাই দৈনিক রুদ্রবার্তাকে বলেন, রোববার দুপুরে একটি অনুষ্ঠানে ছিলাম। এসময় জানতে পারি, অজ্ঞাতপরিচয় একটি মরদেহ দু’ঘণ্টা ধরে সদর হাসপাতালের গেইটে পড়ে আছে। সঙ্গে সঙ্গে সেখানে ছুটে যাই। পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকতার হোসেন, এসআই রফিক, সাংবাদিকসহ সবাই মিলে ওই ব্যক্তির পরিচয় বের করি।

তিনি বলেন, বরিশাল থেকে ঢাকায় ছেলের বাসায় যাচ্ছিলেন নুরুল ইসলাম। পথে হিটস্ট্রোক করলে সহযাত্রীরা তাকে হাসপাতালের গেইটে রেখে ভয়ে পালিয়ে যান। পরিচয় জানার পর তার সন্তানদের খবর দেওয়া হয়। সোমবার তার দুই ছেলে এসেছেন।

নুরুল ইসলাম কুট্টির ছোট ছেলে ওমর ফারুক বলেন, আমার বাবা আমাদের সঙ্গে ঢাকায় থাকেন। ১৭ দিন আগে বরিশালের মুলাদীতে আমার ফুপুর বাড়িতে বেড়াতে যান তিনি। রোববার বাসে করে ঢাকা আসছিলেন। তখনই দুর্ঘটনাটি ঘটে। বাবার মরদেহ হাসপাতালের সামনে রেখে সহযাত্রীরা চলে যান। আমরা ফেসবুকের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারি। এখন বাবার মরদেহ নিতে এসেছি।

পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আক্তার হোসেন দৈনিক রুদ্রবার্তাকে বলেন, ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহটি স্বজনদের হাতে তুলে দেওয়া হবে।