বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং, ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জমাদিউস-সানি, ১৪৪৩ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং

চরভাগায় ধর্ষণ ইভটিজিং ও শিশু নির্যাতনের প্রতিবাদে যুব সমাজের মানববন্ধন

চরভাগায় ধর্ষণ ইভটিজিং ও শিশু নির্যাতনের প্রতিবাদে যুব সমাজের মানববন্ধন

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার চরভাগায় যুব সমাজের আয়োজনে ধর্ষণ, ইভটিজিং ও শিশু নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুর ২টায় চরভাগা ইউনিয়নের শনি কান্দি এলাকায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন যুব সমাজের পারভেজ বেপারী, মামুন বেপারী, শাহ আলম বেপারী প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, চরভাগা শনি কান্দি গ্রামের ইসুব মোল্যার ছেলে রাজিব মোল্যা (২৫) এলাকায় শিশু থেকে শুরু করে বিবাহিত মহিলাদের উত্তত্যক্ত করে থাকে। রাজিবের যৌন হেনস্তা ও ধর্ষণ আতঙ্কে রয়েছে এলাকার শিশু থেকে বিবাহীত নারীরা।

প্রায় ১৫ দিন পূর্বে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছাত্রীকে রাজিব জোর করে ধর্ষণের চেষ্টা করে। শিশুটির চাচাতো ভাই টের পেয়ে ধর্ষণের হাত থেকে শিশুটিকে রক্ষা করে। সেই ঘটনায় সমাজের মুরব্বি কাদের বেপারী অন্যান্য মুরব্বিদের উপস্থিতিতে চরিত্রহীন রাজিবের বিচার করেন। তখন ছেলেকে ১ মাসের মধ্যে বিয়ে দেয়ার জন্য রাজিবের পিতাকে উপস্থিত মুরব্বিরা চাপ প্রয়োগ করেন। সেই ঘটনার ১৫ দিনের মধ্যে রাজিব আরও একটি জঘণ্য ঘটনা ঘটায়। সে রাত ১২টার সময় এক প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণের উদ্দেশ্যে তার ঘরে প্রবেশ করে।

তখন এলাকার যুব সমাজের কাছে রাজিব ধরা খায়। এই ধর্ষক রাজিব এলাকায় থাকলে শিশু থেকে শুরু করে কোন নারীই নিরাপদে থাকতে পারবে না। আমরা যুব সমাজের পক্ষ থেকে এই ধরনের ধর্ষকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি। সমাজের মুরব্বিরা যেন কোন কিছুর বিনিময়ে এই ধরনের ধর্ষকদের বিনা বিচারে ছেড়ে না দেন। তাহলে আমাদের মা-বোন সহ কোন শিশুও নিরাপদে থাকতে পারবে না।

এই বিষয়ে সমাজের মুরব্বি কাদের বেপারী বলেন, পূর্বে এই রাজিবকে নিয়ে একটি শালিসি করেছিলাম। এখন তার বিরুদ্ধে আবারও একটি অভিযোগ এসেছে। আমরা সামাজিক ভাবে তার বিচার করব এবং শেষ বারের মতো শতর্ক করে দিব।

অভিযুক্ত রাজিবের বাড়ি গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। বাড়িতে থাকা তার পিতা ইউনুছ মোল্যা বলেন, মুরব্বিদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ছেলের বিয়ের জন্য মেয়ে খুঁজতেছি। ছেলে কখন কোথায় যায় তাতো বলে যায় না। তবুও যত দ্রুত সম্ভব ছেলেকে বিয়ে দিয়ে দিব।