বৃহস্পতিবার, ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং, ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৭ই রজব, ১৪৪৪ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

শীত ও কুয়াশায় শরীয়তপুরে জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবির

শীত ও কুয়াশায় শরীয়তপুরে জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবির

টানা ৪ দিন ধরে পদ্মা মেঘনা বেষ্টিত জনপদ শরীয়তপুরে ঘন কুয়াশার জন্য সূর্য্যরে মুখ দেখা যাচ্ছে না। প্রতিদিন তাপ কমছে আর বাড়ছে শীতের প্রকোপ। উত্তরের হিমেল হাওয়ায় যেন জেকে বসেছে হাড় কাপানো শীত। রাস্তা ঘাট ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন হওয়ায় সামান্য দুরের কিছুই স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে না। সাভাবিক জনজীবনে নেমে এসেছে স্থাবিরতা।

এমন ঘন কুয়াশায় হেইড লাইট জ¦ালিয়ে ও ধীর গতিতে চালাতে হচ্ছে যানবাহন। এতে যাতায়াতে অতিরিক্ত সময় ব্যয়সহ ভোগান্তিতে পড়ছেন জেলাবাসী। টানা ৪ দিন ধরে সুর্য্যরে মুখ দেখা যাচ্ছে না। সকালে হাড়কাপানো শীতের কারনে অতি প্রয়োজন ছাড়া ভোরে ঘর থেকে বের হচ্ছে না মানুষ। মৎস্যখামারে ও কৃষিকাজে বোরো ধান রোপনে বিপাকে পড়েছে কৃষক।

হাড় কাপানো শীতের কারনে কর্মহীন হয়ে পড়েছে শ্রমজীবি মানুষ। এতে করে আয় রোজগার কমে সংসার চালাতে অভাব অনটনে বিপাকে পড়েছে নিন্ম আয়ের মানুষ। কর্মজীবী মানুষেরা চায়ের দোকানে ও রাস্তার মোড়ে মোড়ে আগুন জ¦ালিয়ে শীত নিবারনের চেষ্টায় অলস সময় পাড় করছেন।

অন্যদিকে তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় ডাইরিয়া ও নিউমোনিয়া, সর্দি কাশিসহ বিভিন্ন শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। শরীয়তপুর সদর হাসপাতালসহ ৬টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বেড়েছে শীতজনিত রোগীর চাপ। যাদেও বেশির ভাগই শিশু ও বৃদ্ধ মানুষ। শিশুদের জীবন রক্ষায় গরম পরিবেশে থাকার ও পচা বাসী খাবার না খাওয়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

এদিকে শীতার্থ দরিদ্র ছিন্নমূল মানুষের মাঝে সরকারী ভাবে শীতবস্্র বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।


error: Content is protected !!