বৃহস্পতিবার, ৪ঠা জুন, ২০২০ ইং, ২১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১২ই শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ৪ঠা জুন, ২০২০ ইং

ভেদরগঞ্জের সখিপুরে স্ত্রীকে নিয়ে শপিং করলো করোনা রোগী, এলাকায় আতঙ্ক

ভেদরগঞ্জের সখিপুরে স্ত্রীকে নিয়ে শপিং করলো করোনা রোগী, এলাকায় আতঙ্ক
ভেদরগঞ্জের সখিপুরে স্ত্রীকে নিয়ে শপিং করলো করোনা রোগী, এলাকায় আতঙ্ক

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুরে স্ত্রীকে সাথে নিয়ে শপিং করেছে কোভিড-১৯ আক্রান্ত এক করোনা রোগি। এ নিয়ে এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

আক্রান্ত ব্যক্তির প্রতিবেশীরা বলেন, গত ৫ মে নমুনা নেয়ার পর প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঐ ব্যক্তিকে হোমকোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছিল। কিন্তু আজ সে তার স্ত্রীকে নিয়ে সখিপুর বাজারে শপিং করতে যাওয়ার পরই রিপোর্ট আসে সে করোনা পজিটিভ। সে এলাকার অনেকের সাথেই মিশেছিল। রিপোর্টের পর পুরো এলাকা জুড়ে এখন আতঙ্ক বিরাজ করছে।

২৯ বছর বয়সী ঐ ব্যক্তি সখিপুরের হামিদ মুন্সি কান্দির বাসিন্দা। গত ৫ মে তার দেহ থেকে নমুনা সংগ্রহের আগে গত ৩ মে সে ঢাকা থেকে নিজের গ্রামে এসেছে।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর আল নাসীফ বলেন, আক্রান্ত ব্যক্তি সখিপুর বাজারের বিভিন্ন দোকানে অবস্থান করেছিলেন এমন তথ্যের ভিত্তিতে সখিপুর বাজারের এক ফার্মাসিষ্ট, এক কসমেটিক দোকানী ও তাকে বহনকারী এক রিকশার চালককে হোমকোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। এছাড়া একটি কাপড় দোকানে সে কাপড় কিনেছিল এমন তথ্য পেয়েছি। কিন্তু দোকানের নাম বলতে না পারায় সে দোকানীকে হোমকোয়ারেন্টিনে রাখা যায়নি।

তিনি বলেন, ঘটনার পর পরই আমরা সেখানে উপস্থিত হয়ে আক্রান্তের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। তার দুই প্রতিবেশীর বাড়ির লোকজনকে হোমকোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। প্রতিবেশীদের দেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. এনামুল হক বলেন, করোনা আক্রান্তের খবর পাওয়ার পর পরই তার বাড়ি লক ডাউন করা হয়েছে। আশেপাশের দুই বাড়ির লোকজন ও তার সংস্পর্শে এসেছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে আরো তিনজনকে হোমকোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে।