Tuesday 16th April 2024
Tuesday 16th April 2024

Notice: Undefined index: top-menu-onoff-sm in /home/hongkarc/rudrabarta.net/wp-content/themes/newsuncode/lib/part/top-part.php on line 67

মেডিকেল পরীক্ষার্থীর উত্তরপত্র ছিঁড়ে ফেলায় ডামুড্যায় মানববন্ধন

মেডিকেল পরীক্ষার্থীর উত্তরপত্র ছিঁড়ে ফেলায় ডামুড্যায় মানববন্ধন

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় এক মেডিকেল পরিক্ষার্থীর উত্তরপত্র ছিঁড়ে ফেলার ঘটনায় অভিযুক্ত ডা. নাফিসা ইসলামের উপযুক্ত বিচার ও মেডিকেল পরিক্ষার্থী হুমাইরা ইসলাম ছোয়া’কে পুনরায় পরীক্ষা দেওয়ার দাবিতে মানববন্ধন করছে ভুক্তভোগীর ছোয়া’র এলাকাবাসী।

শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারী) দুপুর ১২ টার দিকে শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলার পূর্ব সিড্যা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে দারুল আমান ইউনিয়নের সর্বস্থরের জনগন এ মানববন্ধন পালন করেন।

 

এসময় ভেদরগঞ্জ টু ডামুড্যাগামী যানবাহনের লম্বা জ্যাম সৃষ্টি হয়। এসময় অভিযুক্ত ওই ডা. নাফিসা ইসলামের দ্রুত বিচার না করলে আন্দোলন আরোও কঠোর রুপ নেওয়ার হুশিয়ারি দেন আন্দোলনকারীরা।

হুমাইরা ইসলাম ছোঁয়ার মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) শেখ কামাল ভবনের অষ্টম তলার ৮২৩ নম্বর কক্ষে। পরীক্ষা শুরুর প্রায় ৪০ মিনিট পর হুমাইরার পাশে বসা এক পরীক্ষার্থীর থেকে ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস জব্দ করা হয়। এ সময় হলের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিরা হুমাইরারও উত্তরপত্র কেড়ে নেন ও ছিঁড়ে ফেলেন।

এ সময় দাবির মুখে যাচাই করে হুমাইরার উত্তরপত্র সঠিক ছিল বলে প্রমাণ হয়। পরে দুঃখ প্রকাশ করে তাকে নতুন একটি ওএমআর শিট দেয়া হয়। তবে তখন সময় ছিল অল্প। এতে হুমাইরার সব স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়। কক্ষের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তির ভুলের শিকার হন ওই ভর্তিচ্ছ।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থী সুপ্রীতিঘোষ জানান,মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের অনুরোধ তিনি যেন আমাদের হুমায়ারা ইসলাম ছোয়া আপুর মেডিক্যাল চান্স করে দেন এবং যে আপুর খাতা ছিড়ে ফেলেছে তার যে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয় ।এরকম যদি হয় তাহলে আমরা স্বপ্ন দেখা ভুলে যাবো, আমরা এই মানববন্ধন থেকে বলতে চাই আমাদের ছোয়া আপুর ভর্তি এমবিবিএস পরীক্ষার চান্স করে দেওয়া হউক, আপু ডা. হয়ে আমাদের দারুলআমান কে গর্বিত করবে।

মিতালি সিকদার জানান,ডিভাইস জব্দের ঘটনার সঙ্গে ন্যূনতম সম্পর্ক না থাকলেও হুমায়ারা ইসলাম ছোয়ার চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন শেষ। ডা.নাফিসা পরীক্ষা হলে একজন পরীক্ষার্থী খাতা ছিড়ে ফেলেছে এটা অনৈতিক কাজ এর জন্য তার কঠিন শাস্তি হওয়া উচিত। একজন মেয়ে হয়ে আরেক জন মেয়ের খাতা ছিড়ে ফেলা ঠিক হয়নি।আমরা তাকে ধিক্কার জানাই।

আমাদের মেধাবী শিক্ষার্থী হুমায়ারা কে মেডিক্যাল পড়ার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।

শিক্ষক আন্টু জানান আমাদের মেধাবী শিক্ষার্থী হুমায়ারা ইসলাম ছোয়ার উপর যে অনৈতিক সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে তার তীব্র প্রতিবাদ জানাই।বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও এর সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে অনুরোধ করছি হুমায়ারা ইসলাম ছোয়ার মেডিক্যালে ভর্তি হতে পারে তার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। তিনি ভর্তি পরীক্ষার ৭ দিন অতিবাহিত হলে ও আপনার কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি, আশা করি আপনার দ্রুত ছোয়ার ভর্তি ব্যবস্থা করবেন। নয়তো আমরা আর কঠিন কর্মসূচি করতে বাধ্য হবো।

হুমায়ার ইসলাম ছোয়ার ফুপু নাজমুন নাহার বলেন, ডিভাইস জব্দের ঘটনার সঙ্গে ন্যূনতম সম্পর্ক না থাকলেও ভাতিজির চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন শেষ।

আমার ভাতিজি হুমায়ারা ইসলাম ছোয়ার মেডিক্যাল পরীক্ষা দিয়েছে তারা আমার ভাতিজির খাতা অন্যায় ভাবে ছিড়ে ফেলেছে। তার মেডিক্যাল এর স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়েছে।মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন আমার ভাতিজিকে যেন মেডিক্যাল পড়ার সুযোগ করে দেন।আর ডা. নাফিসা ইসলাম আমার ভাতিজির ছোয়ার খাতা অনৈতিক ভাবে ছিড়ে ফেলেছে তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানাচ্ছি।

দারুলআমান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মমিনুল হক মিন্টু সিকদার বলেন, আমাদের মেধাবী শিক্ষার্থী হুমায়ারা ইসলাম ছোয়ার মেডিক্যাল পরীক্ষার খাতা ছিড়ে ফেলেছে ডা. নাফিসা ইসলাম।ডা. নাফিসা ইসলামের অধিকার নাই কোন পরীক্ষার্থীর খাতা ছিড়ে ফেলার, ডা. নাফিসার শাস্তি দাবি জানাচ্ছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মাননীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ হুমায়ারা ইসলাম ছোয়ার মেডিক্যাল পরীক্ষা মাধ্যমে ভর্তি করার জন্য।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন ডামুড্যা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এমদাদুল হক ইনু বেপারী, ডামুড্যা উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজা খানম লাভলী, দারুণআমান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মমিনুল হক মিন্টু সিকদার, দারুলআমান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহিম, রাজনৈতিক নেতৃত্ব বৃন্দ, স্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক, কর্মচারী,সাধারণ মানুষ।