বৃহস্পতিবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং, ৭ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৮ই জমাদিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং
শরীতপুরের গোসাইরহাট

মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা ভাগাভাগি নিয়ে ছোট ভাইয়ের ছুরির আঘাতে বড় ভাই খুন

মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা ভাগাভাগি নিয়ে ছোট ভাইয়ের ছুরির আঘাতে বড় ভাই খুন

শরীতপুরের গোসাইরহাট উপজেলায় বাবার পেনশন ও মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা ভাগাভাগি নিয়ে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে ছোট ভাইর ছুরির আঘাতে বড় ভাই খুন হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। শনিবার (০১ নভেম্বর) রাত ১২ টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আহত সোহেল মোল্লার (২৮) মৃত্যু হয়।

নিহত সোহেল মোল্লা উপজেলার কোদালপুর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের দেওয়ানপাড়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মৃত নান্নু মিয়ার মোল্লার ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানা গেছে, কোদালপুর ইউনিয়নের দেওয়ানপাড়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মৃত নান্নু মিয়া মোল্লা। তিনি বংলাদেশ সেনাবাহিনতে চাকরি করতেন। চাকরি শেষে তিনি পেনশনে যান। পেনশন ও মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা মেঝ ছেলে সোহেল মোল্লার কাছে রেখে গেছেন।

গত (২৯ অক্টোবর) বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে সেই পেনশন ও মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা ভাগাভাগি নিয়ে তার মেঝ ছেলে সোহেল মোল্লা (২৮) ও ছোট ছেলে ইয়াবুক মোল্লার (২১) সঙ্গে বাকবিতন্ডা হয়। বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে ইয়াকুব একটি ছুড়িতে বিদ্যুতের সংযোগ দিয়ে সোহেলের পেটে আঘাত করে। আহত অবস্থায় পরিবার সোহেলকে গোসাইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। কর্তব্যরত চিকিৎসক সোহেলকে ঢাকা প্রেরণ করে। পরিবারের লোকজন তাকে ঢাকা না নিয়ে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানকার চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত ১২ টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সোহেলের মৃত্যু হয়। রোববার (০১ নভেম্বর) ময়নাতদন্তর জন্য লাশ শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে আনা হয়।

গোসাইরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা সোহেব আলী জানান, বাবার পেনশন ও মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা নিয়ে দুই ভাইর ভিতর ঝগড়া হয়। এ সময় ছোট ভাই ইয়াকুব তার বড় ভাই সোহেলের পেটে ছুড়ি ঢুকিয়ে দেয়। তিনদিন পর হাসাপতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোহেলের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় একটি মামলা হচ্ছে। ইয়াকুবকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।