Thursday 30th May 2024
Thursday 30th May 2024

Notice: Undefined index: top-menu-onoff-sm in /home/hongkarc/rudrabarta.net/wp-content/themes/newsuncode/lib/part/top-part.php on line 67

গোসাইরহাট তীব্র তাপদাহে ক্লান্ত মানুষকে ঠান্ডা শরবত পান করাত কিছু যুবক

গোসাইরহাট তীব্র তাপদাহে ক্লান্ত মানুষকে ঠান্ডা শরবত পান করাত কিছু যুবক

শরীয়তপুরে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছুঁই ছুঁই। তীব্র তাপদাহের কারণে মানুষ ছটফট করছে। এরই মধ্যে দেশের বিভিন্ন এলাকায় হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে কয়েকজনের মৃত্যু হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে কয়েকজন যুবক উদ্যোগ নিয়ে হাজির হয় ঠান্ডা শরবত নিয়ে। হাট-বাজার ও সড়কের পথচারীদের একটু স্বস্তি দিতে শরবত পান করান তারা।

সরেজমিনে দেখা যায়, বুধবার ১ মে দুপুরে শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার জমাদ্দার বাড়ি সড়ক থেকে দাসের জঙ্গল বাজার হয়ে বিভিন্ন সড়কে কয়েকজন বন্ধু মিলে শরবত পান করান। একটি ভ্যানগাড়িতে বিশাল আকারের ডেকচিতে (পাতিল) বিশুদ্ধ পানি, চিনি, স্যালাইন, আপেল, মালটা, ট্যাং, লেবুসহ বরফ দিয়ে শরবত বানিয়ে প্রায় ৫০০ মানুষের মধ্যে ১২০ লিটার শরবত বিতরণ করা হয়।

কালি খোলা বাজার থেকে গোসাইরহাট বাজারে যাত্রী নিয়ে ভ্যান গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছিল মিন্টু সর্দার (৪০) এসময় তার গাড়ি থামিয়ে এক গ্লাস ঠান্ডা শরবত পান করান যুবকরা।

শরবত পান করে তিনি বলেন, এই গরমে গাড়ি চালিয়ে শরীর খুবই দুর্বল লাগে, তারা আমাকে ঠান্ডা শরবত খাইয়েছে। খেয়ে এখন খুবই ভালো লাগছে তাদেরকে আমি দোয়া করি।

তীব্র গরমে নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বসেছিলেন নিরব বেপারী এমন সময় এক যুবক এক গ্লাস শরবত নিয়ে দিলেন তাকে। তিনি শরবত তৃপ্তি করে খেয়ে বলেন, এই গরমে এক গ্লাস ঠান্ডা শরবত মানুষের জন্য যে কি উপকার তা বলে বোঝাতে পারবো না। ওরা বন্ধুরা মিলে যে উদ্যোগ নিয়েছে এজন্য আমি তাদের ধন্যবাদ জানাই।

শরবত বিতরণ করার সময় বন্ধুদের একজন নাঈম জমাদ্দার (২১) দৈনিক রুদ্রবার্তাকে বলেন, আমরা সবাই শিক্ষার্থী। এই প্রচণ্ড গরমে মানুষ বির্পযস্ত হয়ে পড়েছে। দুপুরের রোদ্দুরে মানুষের নাভিশ্বাস অবস্থা। তৃষ্ণার্ত মানুষ ক্লান্ত হয়ে যাতে অসুস্থ না হয়, সে জন্য আমরা বন্ধুরা শরবত সরবরাহ করছি। আজ ৪-৫শ গ্লাস শরবত মানুষকে পান করাতে পেরে আমরা সব বন্ধুরা খুবই আনন্দিত।

গোসাইরহাট পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আলী আকবর সরদার দৈনিক রুদ্রবার্তাকে বলেন, এই দাবদাহে কর্মজীবী ও শ্রমজীবী মানুষ কষ্টে আছেন। দুপুরের সময় রাস্তা-ঘাটে মানুষ ক্লান্ত থাকেন। এমন পরিস্থিতিতে ক্লান্ত মানুষকে স্বস্তি দিতে মানবিক উদ্যোগ নিয়েছে কয়েকজন যুবক। আমি তাদের গোসাইরহাট পৌরসভার পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাই।