বৃহস্পতিবার, ৯ই জুলাই, ২০২০ ইং, ২৫শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী
বৃহস্পতিবার, ৯ই জুলাই, ২০২০ ইং

মন্টুর লোকজন গুলিকরে শিশুটিকে হত্যা করেছে !

মন্টুর লোকজন গুলিকরে শিশুটিকে হত্যা করেছে !

মন্টু ব্যাপারী ও তার লোকজন আমাদের লোকজনের উপর ককটেল নিক্ষেপ করে ও গুলি চালায়। আমাদের রিয়াজ মাদবরকে হত্যা করে এবং ১১ জন আহত করে। আমরা থানায় মামলা করবো। হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি।

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপে সংঘর্ষে রিয়াজ মাদবর (১৭) নামে এক তরুণ নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ১৬ জন আহত হয়েছে। শনিবার ২৭ জুন দিবাগত রাতে উপজেলার সেনেরচর ইউনিয়নের চরধুপুর শাকিম আলি মাদবরেরকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রিয়াজ মাদবর ওই গ্রামের লিটন মাদবরের ছেলে। আর আহত দেলোয়ার মাদবর (৬০), রিমান মাদবর (৩০), রাজ্জাক মাদবর (৫০), বাদশা ব্যাপারী (৩৫), ইয়ার হোসেন (৩৫), সাদ্দাম হোসেন (২৫), এশা বেগম (৪৫), মিম আক্তার (৪০), মহসিন খাঁ (২৫), ইমরান মাদবর (২২), বিল্লাল হোসেন (৩০), মন্টু ব্যাপারী (৫২), রিপন মাদবর (৩২), রুয়েল সরদার (২২), ফরিদ সরদার (২০) ও রিজিয়া বেগম (৫৫)। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, জাজিরা উপজেলার সেনেরচর ইউনিয়নের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মন্টু ব্যাপারী সঙ্গে এমদাদ মাদবরের দীর্ঘদিন যাবত দন্দ্ব চলে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় শনিবার সন্ধ্যায় মন্টু ব্যাপারীর সমর্থক দুদু মিয়া স্থানীয় বঙ্গবাজার যাচ্ছিলেন এমন সময় শাকিম আলী মাদবরেরকান্দি সংলগ্ন নদীর পারে থাকা এমদাদ মাদবরের সমর্থক রাসেলের সঙ্গে বাকবিতন্ডা হয়। বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে দুজনের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে রাতে দু’গ্রুপের মধ্যে কয়েক দফায় সংঘর্ষ হয়। এ সময় দু’গ্রুপে শতাধিক ককটেল বিষ্ফরণ ঘটায় এবং গুলি ছোড়া হয়। এতে রিয়াজ মাদবর নামে একজনের নিহত হয় ও পাঁচ জন গুলিবিদ্ধসহ ১৬ জন আহত হয়েছে। দু’গ্রুপের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট হওয়ায় ঘটনা ঘটে। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এমদাদ মাদবর বলেন, গতকাল পূর্ব শত্রুতামূলক মন্টু ব্যাপারী ও তার লোকজন আমাদের লোকজনের উপর ককটেল নিক্ষেপ করে ও গুলি চালায়। আমাদের রিয়াজ মাদবরকে হত্যা করে এবং ১১ জন আহত করে। আমরা থানায় মামলা করবো। হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি।

জাজিরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজহারুল ইসলাম সরকার, পিপিএম বলেন, উপজেলার সেনেরচর ইউনিয়নের চরধুপুর শাকিম আলি মাদবরেরকান্দি এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপে সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অনেকেই। নিহতর মরদেহ আজ (রোববার) ময়নাতদন্তর জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থলে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।