শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ ইং, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরী
শনিবার, ১লা অক্টোবর, ২০২২ ইং

উপমন্ত্রীর নির্দেশে ডান তীর রক্ষা বাঁধ পরিদর্শণ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগ

উপমন্ত্রীর নির্দেশে ডান তীর রক্ষা বাঁধ পরিদর্শণ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগ
উপমন্ত্রীর নির্দেশে ডান তীর রক্ষা বাঁধ পরিদর্শণ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগ

শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ পদ্মা ডান তীর রক্ষা বাঁধ পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম এমপির নির্দেশে পরিদর্শণ করেন।

রবিবার (০৩ মে) বেলা ১২ টার নড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী হাচান আলী রাড়ী ও সাধারণ সম্পাদক মাস্টার হাসানুজ্জামান খোকন এর নেতৃত্ব পদ্মা নদীর ডান তীর রক্ষা বাধের মোক্তারের চর, পৌরসভা, সুরেশ্বর, চরআত্রা ও নওপাড়া এলাকার বাধের কার্যক্রম দেখেন। পরে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী এ কে এনামুল হক শামীম এমপি কে সকল বিষয় অবহিত করেন।

পদ্মা নদীর ডান তীর রক্ষাবাধ পরিদর্শনের সময় ছিলেন নড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোঃ দুলাল বেপারী, কোষাধ্যক্ষ মোঃ আলমগীর হোসেন, ডানতীর রক্ষা বাধ আন্দোলনের সদস্য সচিব সাইদুল হক মুন্নাহ।

উল্লেখ্য যে, আসন্ন বর্ষায় নদী তীর রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেন উপমন্ত্রী জননেতা একেএম এনামুল হক শামীম এমপি। বিশ্ব যখন করনা মহামারীতে আক্রান্ত তার ধারাবাহিকতার মধ্যে বাংলাদেশও আছে।

গত ২৪ শে মার্চ শরীয়তপুর জেলা লকডাউন ঘোষণার কারণে, নদী তীর রক্ষায় নিয়োজিত লেবার, কর্মকর্তা-কর্মচারী লোকজন ও এর আওতায় অন্তর্ভুক্ত হয়। বর্ষা খুব সন্নিকটে তাই উপমন্ত্রী লেবারদের কর্মস্থলে ফিরিয়ে আনার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেন এবং যে যে জেলার উপর দিয়ে লেবারদের কে আনা হয় সেই জেলার জেলা প্রশাসককে অবহিত করে আনার ব্যবস্থা করেন। লকডাউন এর কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকে।

তাই উপমন্ত্রী নড়িয়া জাজিরা ডানতীর রক্ষার জন্য যুগান্তকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। নদীর তীরবর্তী স্থানে স্রোতের চাপ কমানোর জন্য, নদীর মাঝে জেগেওঠা বালুর চরের ১১.৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যে এবং প্রস্থে ২০০ মিটার ড্রেজিং করার জন্য চারটি ড্রেজার মেশিন খনন কাজে লাগান।

ডানতীর রক্ষা বাধ আন্দোলনের সদস্য সচিব সাইদুল হক মুন্নাহ এ বিষয়ে জানান, মাননীয় উপমন্ত্রী মহোদয় বলেন, আগামী বর্ষা মৌসুমের পূর্বে তীর রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় জনগণ ও স্বস্তি বোধ করছেন।

তিনি আরো বলেন, উপমন্ত্রী জননেতা এ কে এম এনামুল হক শামীম বলেন, এ বর্ষায় ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় কাজ করার অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন পর্যায়ক্রমে কীর্তিনাশা নদীর পশ্চিম পারে অর্থাৎ মোক্তারের চরের নদী সীমানায় স্থায়ী নদী শাসনের কাজ করা হবে।

মহামারী করোনায় উপমন্ত্রী নিজস্ব এবং দলীয় তহবিল থেকে ৪৭ হাজার পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন। তিনি বলেন আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কর্মী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি। তিনি নদীতীর রক্ষায় নিয়োজিত শ্রমিকদের সামজিক দূরত্ব বজায় রেখে কাজ করার নির্দেশ দেন।


error: Content is protected !!