রবিবার, ৯ই আগস্ট, ২০২০ ইং, ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জিলহজ্জ, ১৪৪১ হিজরী
রবিবার, ৯ই আগস্ট, ২০২০ ইং

নড়িয়ায় বাড়িঘর ভাংচুর, নারীসহ আহত ৪

নড়িয়ায় বাড়িঘর ভাংচুর, নারীসহ আহত ৪

শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দুই বাড়িতে অতর্কিত হামলা করে বাড়িঘর লুটপাট, ভাংচুর ও নারীসহ ৪ জনকে পিটিয়ে আহত করেছে স্থানীয় সন্ত্রাসীরা। অভিযোগটি ওঠে উপজেলার নশাসন ইউনিয়নের ছিটু ব্যাপারীর কান্দি গ্রামের মৃত আ: আজিজ বেপারীর ছেলে খলিলুর রহমান বেপারী(৪০) ও মৃত মকফর বেপারীর ছেলে আ: মান্নান বেপারী(৪৮) গংদের বিরুদ্ধে। রবিবার ২৮ জুন রাত সোয়া ১১ টার দিকে ওই গ্রামে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- ছিটু ব্যাপারীর কান্দি গ্রামের আমির বেপারীর স্ত্রী রাশিদা বেগম(৫২), জালাল শেখের ছেলে জসীম শেখ(২৫), জসীম শেখের স্ত্রী(২২) ও আমির বেপারীর ছেলে দেলোয়ার বেপারী(২৫)।

সরেজমিনে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, আমির বেপারী ও জসিম মাদবরের বাড়িতে এ অতর্কিত হামলার ঘটনা ঘটে। আহত গৃহবধু হলেন আমির বেপারীর স্ত্রী রাশিদা বেগম। এছাড়া জসিম মাদবর, জসীম মাদবরের স্ত্রীসহ মোট ৪ জন আহত হয়। আহত অবস্থায় রাশিদা বেগমকে নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রবিবার রাতে ছিটু বেপারী কান্দির ইটের ভাটায় ফুটবল টুর্নামেন্ট শেষ করে ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজনকারী মৃত আ: আজিজ বেপারীর ছেলে খলিলুর রহমান বেপারী ও মৃত মকফর বেপারীর ছেলে আ: মান্নান বেপারীর লোকজন খিচুড়ি খাওয়ার আয়োজন করে। স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে ফুটবল টুর্নামেন্ট যাতে না হতে পারে এজন্য হামলার শিকার ঐ দুই পরিবারের লোকজন ও গ্রামের আরো গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ মৌখিকভাবে নিষেধ করেছিল ও নড়িয়া প্রশাসনকে জানিয়েছিল। উপরোক্ত শত্রুতা ও পূর্ব শত্রুতার জেরে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে জানা যায়।

এছাড়া আরো জানা যায়, ফুটবল টুর্নামেন্ট চলাকালীন সময় এলাকাবাসীর গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ আ: খালেক বেপারী, রুহুল আমিন বেপারী, লুৎফর রহমান বেপারী, জাকির হোসেন বেপারী, খোরশেদ বেপারী, আনোয়ার হোসেন বেপারীসহ এলাকার ২৫/৩০ জনের পরামর্শক্রমে সাংবাদিক আনিছুর রহমান নড়িয়া উপজেলা প্রশাসন ও নড়িয়া থানাকে এ ফুটবল টুর্নামেন্ট বাধা দিতে অবগত করিয়েছিল যে, এ ফুটবল টুর্নামেন্ট খেলাকে কেন্দ্র করে এলাকায় রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হতে পারে! এজন্য ফুটবল টুর্নামেন্টটি যেন বাধা দেওয়া হয়। কিন্তু প্রশাসন ঐ এলাকার ফুটবল টুর্নামেন্ট সরাসরি বন্ধ করতে যায়নি। প্রশাসনের সরাসরি হস্তক্ষেপ না করার কারনেই রবিবার রাতের আধারে দুই বাড়িতে এ অতর্কিত হামলার দুঃসাহসিকতা সৃষ্টি হয়েছে বলে ধারণা করা হয়।

অভিযুক্তদের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তাদের পাওয়া যায়নি।

হামলার শিকার আমির বেপারীর স্ত্রী রাশিদা বেগম বাদী হয়ে ১০ জনকে আসামী করে নড়িয়া থানায় একটি মামলা করেন।

এ ব্যাপারে নড়িয়া থানা ওসি হাফিজুর রহমান বলেন, গতকাল রাতে নড়িয়া উপজেলায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পরিকল্পিতভাবে দুই বাড়িতে অতর্কিত হামলা করে বাড়িঘর লুটপাট, ভাংচুর ও নারীসহ কয়েকজন আহত হয়েছে। রাতেই একজনকে আটক করা হয়েছে। অভিযোগকারীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।