বুধবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং, ৮ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৬ই সফর, ১৪৪২ হিজরী
বুধবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং
পুলিশের সামনে শতাধিক ককটেল বিস্ফোরণ

নড়িয়ায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষে ৩১ জনের বিরুদ্ধে পুলিশের মামলা

নড়িয়ায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষে ৩১ জনের বিরুদ্ধে পুলিশের মামলা

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শরীয়তপুরের নড়িয়া আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশের সামনে শতাধিক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় উভয় গ্রুপ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ৫০ রাউন্ড ফাঁকা রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পুলিশ। গত বুধবার রাতে এই ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে ৩১ জনকে আসামি করে নড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। বৃহস্পতিবার রাতে ৮ জনকে আটক করেছে নড়িয়া থানা পুলিশ।

জানা যায়, নড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি আনোয়ার হোসেন বাদশা শেখ এবং উপজেলা যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও মোক্তারেরচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌকিদারের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। বাদশা শেখের সমর্থক রিপন শেখ, ইউনুছ শেখসহ ১০-১২ জন রাতে গোলাম মাওলা ব্রিজের পশ্চিম পাশে গল্প করছিল। এ সময় শাহ আলম চৌকিদারের সমর্থক সুমনসহ ৩০-৪০ জন তাদের ধাওয়া করে। এ সময় উভয় গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এতে উভয় গ্রুপের অন্তত ১০ জন আহত হয়।

খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এসএম মিজানুর রহমান ও নড়িয়া থানার ওসি হাফিজুর রহমান ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। তখন অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের গাড়ির সামনে পরপর কয়েকটি ককটেল ফাটায় এক গ্রুপের লোকজন। পুলিশ নিজেদের সুরক্ষা ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ৫০ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে। এ ঘটনার পর থেকে নড়িয়া বাজার ও আশপাশের লোকজন ও ব্যবসায়ীরা চরম আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন। ঘটনার সময় বাজারের সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়। এ ঘটনায় নড়িয়া থানার এ এস আই রিপন নাগ বাদি হয়ে ৩১ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার আসামীরা হলেন- ১। মোকলেছ বেপারী ২। রাজু বেপারী৩। আল আমিন মোল্লা, ৪। খোকন মোল্লা,৫। সুমন বেপারী,৬। খলিল বেপারী ৭।ওসমান বেপারী, ৮। কুদ্দুস খান ৯। মামুন খান ১০। আরমান খান ১১। রুবেল ফকির ১২। নাসির খান ১৩। সম্রাট বেপারী ১৪। আরিফ খান ১৫। রিপন শেখ ১৬। মাসুম দেওয়ান ১৭। জাহাঙ্গীর মিস্ত্রী ১৮। রিপন মৃধা ১৯। জবেদ শেখ ২০। সালাম হাওলাদার ২১। অলিল মোল্লা ২২। নাসির বন্দুকছি ওরফে টাডু বন্দুকছি ২৩। বাদল চৌকিদার ২৪। তেফাজ্জল চৌকিদার ২৫। আবুল খায়ের ফকির ২৬। আব্দুর রাজ্জাক উকিলা ২৭। তারেক ভুইয়া ২৮। বাবুল বয়রা ২৯। লিয়াকত মাদবর ৩০। বাবুল মাদবর ৩১। লতিফ শেখ।
নড়িয়া থানার ওসি হাফিজুর রহমান বলেন, সংর্ঘষ ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ৩১ জনকে আসামী করে মামলা কারা হয়ে। এ ঘটনায় জড়িত ৮ জনকে আটক করা হয়েছে।